শিরোনাম

একদলীয় শাসনব্যবস্থার প্রতি বেগম মুজিবের মেজাজ-মর্জি

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : সোমবার, জুলাই ২৫, ২০২২ ১১:৩৬:৫৪ অপরাহ্ণ
একদলীয় শাসনব্যবস্থার প্রতি বেগম মুজিবের মেজাজ-মর্জি
একদলীয় শাসনব্যবস্থার প্রতি বেগম মুজিবের মেজাজ-মর্জি

সোহেল সানি

“তোদের আচার-আচরণ ও মেজাজ-মর্জি তো এখন এরকম হবেই, কারণ তোরা তো এখন পে-সিডেন্টের ছেলেমেয়ে।” বঙ্গবন্ধুর জীবন-মরণের সহযাত্রী মহীয়সী নারী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব “প্রেসিডেন্ট” শব্দটি ইচ্ছে করেই ব্যঙ্গ করে উচ্চারণ করে শাসাচ্ছিলেব মেয়ে রেহানা ও শিশুপুত্র রাসেলকে। দিনটি ছিল ২৫ জানুয়ারি ১৯৭৫। যেদিন বঙ্গবন্ধু “দ্বিতীয় বিপ্লব” ঘোষণা করে সংবিধান চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে দেশে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তনপূর্বক প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে রাষ্ট্রপতির পদ অলংকৃত করেছেন। বেগম মুজিব ইতিপূর্বে কখনও তাঁর ছেলেমেয়েদের কাউকে ক্রুদ্ধ ও রূঢ়ভাবে বকাবকি করতে দেখা যায়নি। পুত্রকন্যাকে উপর্যুক্ত কথাগুলো বলাই শুধু নয়, আদুরে পুত্র শেখ রাসেলের খেলনার জিনিসপত্রে ভর্তি বাক্সটাও ঘরের বাইরে ফেলে দেন বেগম মুজিব। এসময় অন্যকক্ষে বড় মেয়ে শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের সর্বকনিষ্ঠ সংসদ সদস্য (সংরক্ষিত) রাফিয়া আখতার ডলির সঙ্গে কথা বলছিলেন। যাহোক বঙ্গবন্ধুর সংসদ কক্ষেই রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ গ্রহণের পর স্পীকার আব্দুল মালেক উকিল সংসদের শীতকালীন অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য মূলতবি ঘোষণা করেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বরস্থ সড়কের বাসভবনে ফিরেন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায়। বঙ্গবন্ধু হাতমুখ ধুয়ে শয়নকক্ষে প্রবেশ করে টিভি অন করতেই বেগম মুজিব হাজির হন। স্বামী বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশ্যে বলেন,”সংবিধানের এতো ব্যাপক পরিবর্তন, বিশেষ করে একদলীয় ব্যবস্থার প্রবর্তন করবে সে সম্পর্কে তুমি আমাকে একটুও আভাস দেয়ার প্রয়োজনবোধ করলে না? আর তোমার তক্ষুনি সংসদ কক্ষেই প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেয়ার কি প্রয়োজন ছিলো? দু’চারদিন দেরী করলে কি মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে যেতো? যাহোক, স্পষ্ট বলে রাখছি যে, আমি এ বাড়ী ছেড়ে তোমার সরকারী রাষ্ট্রপতির বঙ্গভবনে যাচ্ছি না।” কথাগুলো শুনে বঙ্গবন্ধু মিটমিট করে হাসছিলেন। অতঃপর বঙ্গবন্ধু বললেন, “আমি রাষ্ট্রীয় বিষয়ে তোমাকে সবকিছু বলতে পারি না। এ কথাগুলোর সূত্র বঙ্গবন্ধুরই জ্যেষ্ঠ জামাতা ডঃ এম এ ওয়াজেদ। তাঁর একটি গ্রন্থ থেকে নেয়া। একদলীয় শাসন ব্যবস্থা নিয়ে যে ঘরে বাইরে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছিল, তার আরও কিছু ঘটনার কথা উল্লেখ করছি। বঙ্গবন্ধুর জামাতা অর্থাৎ বাংলাদেশের বর্তমান কান্ডারী শেখ হাসিনার মাঝেও একটা প্রতিক্রিয়ার জন্ম দিয়েছিল সেই সময়। ২৫ জানুয়ারি রাতে ডঃ ওয়াজেদ ও শেখ হাসিনা দম্পতি ছেলেমেয়ে জয়-পুতুলকে নিয়ে ধানমন্ডির ভাড়া করা নিজেদের বাসায় চলে যান। ডঃ ওয়াজেদ শেখ হাসিনাকে বলেন, ” দেশের একজন সচেতন দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে আমার তোমাদের সবাইকে জানানো প্রয়োজন বলে মনে করি যে, তাঁর (বঙ্গবন্ধুর) দেশে একদলীয় রাজনৈতিক শাসনব্যবস্থা প্রবর্তন করা কোনমতেই সমীচীন, যুক্তিযুক্ত ও বাস্তবসম্মত হয়নি বা হবে না। কাজেই সংবিধান চতুর্থ সংশোধনী সত্ত্বেও উচিত হবে না দেশে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রবর্তন সংক্রান্ত রাষ্ট্রপতির আদেশ জারি করা। শেখ হাসিনা ২৬ জানুয়ারি সকালবেলায় পিতার সঙ্গে দেখা করে কথাগুলো বলেন। বঙ্গবন্ধু মেয়ের কথা শুনে বলেন, ওকে (জামাইকে) বলো, দেশের এই পরিবর্তিত রাজনৈতিক শাসনব্যবস্থা শুধু স্বল্পকালের জন্য। শেখ হাসিনা বাসায় ফিরে স্বামীকে বলেন, “তুমি যেন এ ব্যাপারে অযথা উত্তেজিত না হও এবং দুশ্চিন্তা না করো। আব্বার এই কথাগুলো যেন কারোর কাছে জানাজানি না হয়ে যায় সেজন্য তিনি তোমাকে সর্বদা সংযত ও হুশিয়ার থাকতে বলেছেন অন্যের সঙ্গে কথাবার্তায়। বঙ্গবন্ধু ওদিনই বিকেলে মনসুর আলীকে প্রধানমন্ত্রী করে ১৭ সদস্য বিশিষ্ট মন্ত্রিসভা গঠন করেন। ১১ ফেব্রুয়ারী জেনারেল এম এ জি ওসমানী

Spread the love
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us