শিরোনাম

এক পাষণ্ড স্কুল শিক্ষকের লাঠির আঘাতে মাথা ফাটল এক অসহায় মা ও মেয়ের

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৩, ২০২১ ২:১৮:৫২ পূর্বাহ্ণ
এক পাষণ্ড স্কুল শিক্ষকের লাঠির আঘাতে মাথা ফাটল এক অসহায় মা ও মেয়ের
এক পাষণ্ড স্কুল শিক্ষকের লাঠির আঘাতে মাথা ফাটল এক অসহায় মা ও মেয়ের

নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জে বাড়ির সীমানা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে প্রতিপক্ষ এক স্কুল শিক্ষকের লাঠির আঘাতে পাখিমা আক্তার (৪২) নামে এক নারীর মাথা ফেটেছে। আর এ ঘটনার পরপরই জ্ঞান হারান আহত নারী পাখিমা। এসময় মাকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হয় মেয়ে মারুফা আক্তার।মারুফা বলেন,শিক্ষক একজন জাতির বিবেক ।ওই শিক্ষক প্রায় অশ্লীল ভাষায় তার মা কে গালিগালাজ করত ।গতকাল তার মা কে বর্বরোচিত ভাবে আঘাত করে।তার মা ওই শিক্ষকের আঘাতে মাটিতে লুটে পরে।মা কে বাঁচাতে আসলে তাকেও রেহাই দেয় নি ওই পাষণ্ড শিক্ষক ।তাকে ও বেদম ভাবে প্রহার করে।

সোমবার (১২ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে মা ও মেয়েকে মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আর তার মেয়ে মারুফাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। এর আগে, সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার জৈনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পাখিমা জৈনপুর গ্রামের মৃত আবদুল গফুরের স্ত্রী। অভিযুক্ত স্কুল শিক্ষক সুলতান আহমেদ স্থানীয় কেন্দুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন।ওই শিক্ষককের অত্যাচারে অসহায় সাধারন মানুষ ।সমাজের রাজনীতিবিদের হাত করে বিভিন্ন সময় অসহায় মানুষেদর নির্যাতন করে।ওই শিক্ষকের বিরুদ্বে কেউ মুখ খুলতে পারে না।

পাখিমার মেয়ে মারুফা জানায়, আমাদের বাড়ির সীমানা ভেতর নাকি শিক্ষক সুলতানের জায়গা রয়েছে। এমন দাবি করলে মায়ের সাথে তার তর্কাতর্কি হয়। এক পর্যায়ে লাঠি নিয়ে মা কে আঘাত করে ।মা মাটিতে লুটিয়ে পরে। আমি মা কে রক্ষা করতে গেলে এতে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রথমে আমার হাতে আঘাত করেন। ফলে আঘাত পেয়ে আমি পিছু হটলে মায়ের মাথায় আবার বার বার আঘাত করেন। সঙ্গে সঙ্গে আমার মা জ্ঞান হারান।

মোহনগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ আবদুল আহাদ খান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। খোঁজ নিতে হাসপাতালে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us