শিরোনাম

কলাপাড়ায় দাখিল পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের পর পা ধরে পার পেলো ২ পরিক্ষার্থী ॥

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : সোমবার, নভেম্বর ১৫, ২০২১ ১২:২৯:২৯ পূর্বাহ্ণ
কলাপাড়ায় দাখিল পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের পর পা ধরে পার পেলো ২ পরিক্ষার্থী ॥
কলাপাড়ায় দাখিল পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের পর পা ধরে পার পেলো ২ পরিক্ষার্থী ॥

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি  ঃ  কলাপাড়ায় এসএসসি, দাখিল ও এএসসি
(ভোকেশনাল) পরীক্ষার প্রথম দিনে খেপুপাড়া নেছার উদ্দীন ফাজিল মাদরাসা’র
দু’শিক্ষার্থী কোরান মজিদ ও তাজভীদ বিষয়ে অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে হাতে
নাতে ধরা পড়ার পর কেন্দ্র সচিবের তদবিরে বহিস্কার না হওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
রবিবার সরকারী মোজাহার উদ্দীন বিশ্বাস কলেজ কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হওয়ার
পর এ ঘটনা ঘটে। এসময় পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বরত ট্যাগ অফিসারদের যথাযথ
দায়িত্ব পালন নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, রবিবার কলাপাড়ার ৪টি
কেন্দ্রে এসএসসি, দু’টি কেন্দ্রে দাখিল ও ১টি কেন্দ্রে এসএসসি ভোকেশনাল
পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এসএসসি বিজ্ঞান, কলা ও বানিজ্য অনুষদে মোট
পরিক্ষার্থী সংখ্যা ২১৬১। দাখিল ৯৫৯ এবং এসএসসি (ভোকেশনাল) পরিক্ষার্থী
সংখ্যা ৯৫৯। এতে খেপুপাড়া নেছার উদ্দীন ফাজিল মাদরাসা দাখিল পরীক্ষা
কেন্দ্রে (কেন্দ্র কোড ৫৭০) কোরান মজিদ ও তাজভীদ বিষয়ে অসদুপায় অবলম্বনের
দায়ে হাতে নাতে ধরা পড়ে ২ শিক্ষার্থী। ইউএনও’র প্রতিনিধি হিসেবে উপজেলা
প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার মো: রফিকুল ইসলাম এদের খাতা নিয়ে নেয়।
কিন্তু ব্যবস্থা নেয়ার পূর্বেই কেন্দ্র সচিব খেপুপাড়া নেছার উদ্দীন ফাজিল
মাদরাসার অধ্যক্ষ মো: নাসির উদ্দিন হাওলাদার তদবির করে তাদের খাতা ছাড়িয়ে
নেয় এবং পরীক্ষার্থীদের দিয়ে তাদের পা ধরিয়ে ক্ষমা চাওয়ার ব্যবস্থা করেন।
এসময় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: মোখলেসুর রহমান সেখানে উপস্থিত
ছিলো বলে জানা যায়।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার মো: রফিকুল ইসলাম এ
প্রতিবেদককে জানায়,  ২ শিক্ষার্থী পরস্পর খাতা দেখাদেখি করছিলো। তাই
তাদের খাতা নিয়ে ৩০ মিনিট আটকে রাখা হয়েছে।

খেপুপাড়া নেছার উদ্দীন ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মো: নাসির উদ্দিন হাওলাদার
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে গনমাধ্যমকে বলেন, পরীক্ষার খাতা একে অপরে
দেখাদেখি করছিল। তাই তাদের খাতা নিয়ে নেয়া হয়েছিল। মানবিক দিক বিবেচনা
করে তাদের বহিস্কার করা না হলেও তারা কেউ পাস করবে কিনা সন্দেহ।

কলাপাড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: মোখলেসুর রহমান যোগাযোগ করা এ
প্রতিনিধিকে বলেন, তিনি এ বিষয় কিছু জানেননা।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us