শিরোনাম

ঘোড়াঘাটের বলাহার সকরারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ব্যহত করার উদ্দেশ্যে শেখ রাসেল এর নাম ব্যবহার করে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অভিযোগ উঠেছে

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০ ৫:২১:১০ অপরাহ্ণ
ঘোড়াঘাটের বলাহার সকরারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ব্যহত করার উদ্দেশ্যে শেখ রাসেল এর নাম ব্যবহার করে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অভিযোগ উঠেছে
ঘোড়াঘাটের বলাহার সকরারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ব্যহত করার উদ্দেশ্যে শেখ রাসেল এর নাম ব্যবহার করে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অভিযোগ উঠেছে

আবু রায়হানঃ

দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার বলাহার সকরারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ব্যহত করার উদ্দেশ্যে শেখ রাসেল এর নাম ব্যবহার করে একই ক্যাসমেন্টে সরকারি নিতিমালা বর্হিভ’ত একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অভিযোগ উঠেছে।
১৯৫৭ ইং সালে প্রতিষ্ঠিত বলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় একটি ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২০৩ জন শিক্ষার্থী  ও ৮জন শিক্ষক রয়েছে।
বলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুল মতিন এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, তার জানামতে সরকারি বিধি মোতাবেক একই ক্যাসমেন্টে দুটি বিদ্যালয় হয়না। সেখানে দেখা যাচ্ছে পার্শবর্তি মৌজা তোষাই আবার এখানে একই ক্যাসমেন্ট এরিয়া বামোনপাড়া, বলাহার, ভেকশি ইত্যাদী থাকা সত্বেও তোষাই মৌজায় ২০১৯ইং সালে শেখ রাসেল এর নাম ব্যবহার করে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘড় নির্মান করা হয় এবং ২০২০ ইং সালে পাঠদান শুরু করা হয়।
তিনি আরো জানান, যেহেতু তোষাই মৌজা এলাকার শিক্ষার্থী শতকরায় ষাট ভাগ বলাহার সকরারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আসে হয়তো তারা এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান ব্যহত করার উদ্দেশ্যে সেখানে নতুন করে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। যদি শিক্ষার্থী কমে যায় তাহলে শিক্ষার মানও কমে যাবে। তাই বলাহার সকরারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যাপারে সরকার ও যথাযথ কতৃপক্ষ স্বদয় হয়ে পাশাপাশি দুটি বিদ্যালয় নাকরে অথবা যদি বিধি মোতাবেক হয় তাহলে এই সমস্যা সমাধানে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
বলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মশফিকুর রহমান জানান, আমাদের এই ক্যাসমেন্ট এলাকায় আর একটি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা হলে আমাদের এই বিদ্যালয়টি মেধাশূণ্য হয়ে পরবে। এটি একটি ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তাই আগামী দিনে এই ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে সরকার ও শিক্ষা সংশ্লিষ্ঠ্য কতৃপক্ষ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।
অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গিয়ে দেথা গেছে বলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পার্শবর্তি তোষাই মৌজায় নয়াপাড়া এলাকার বাসিন্দা ৪নং ঘোড়াঘাট ইউনিয়ন জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) ত্রি-বার্ষিক অনুমোদিত নির্বাহী কমিটির উপদেষ্টা-(ক) মোঃ আজিজার মিয়া (আজিজ) এর ছেলে মোঃ নূরনবী শেখ রাসেল এর নাম ব্যবহার করে একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে।
উল্লেখ্য নূরনবীর প্রতিষ্ঠিত শেখ রাসেল বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি জরাজির্ণ ও বেলাল দশা লক্ষ্য করা গেছে। বিদ্যালয়টি ফসলি মাঠের মধ্যে নির্জন জায়গায় পুকুর পাড়ে নির্মান করা হয়েছে। এমনকি বিদ্যালয়টিতে যাওয়ার কোন রাস্তাও নেই। ফসলি জমির আইল দিয়ে হেঁটে যেতে হয় সেখানে। আর বর্ষা মৌসুমে হাটু পানি মারিয়ে বিদ্যালয়টিতে যেতে হয়, তাই যেহেতু বিদ্যালয়টির সাথে সংযুক্ত পুকুর সেখানে কোমলমতি শিশুদের যাতায়াত খুবই ঝুকিপূর্ণ।
বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে নূরুনবীর সাথে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যম কর্মিদের প্রায় দুই ঘণ্টা বসিয়ে রেখে পরবর্তীতে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে অস্বিকৃতি জানন।
এ ব্যাপারে ঘোড়াঘাট উপজেলা শিক্ষা অফিসার অতুল চন্দ্র রায় জানান, বলাহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা অফিসে একটি অভিযোগ দিয়েছিল তখন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মহোদ্বয় আমাকে বিষয়টির তদন্তভার দিলে সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত করে বিভিন্ন জনের মতামত নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছি। পরে ২০২০ইং সালে এই বিদ্যালয়ে বই দিয়েছি এবং ২০২০ সালেই বিদ্যালয়টি আমাদের নজরে আসে। সেখানে যাওয়ার রাস্তার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি পাশ কাঁটিয়ে জানান, একেবারেই যে, রাস্তা নেই তা নয়, ছোট রাস্তা আছে।
অথচ গণমাধ্যম কর্মিদের নজরে আসে সেখানে যাওয়ার জন্য ফসলি জমির আইল ব্যবহার করা হয়।
উপরোল্লেখীত বিষয়ে অবিলম্বে এই সমস্যা সমাধানে সরকার ও শিক্ষা সংশ্লিষ্ঠ্য কতৃপক্ষকে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য অত্র এলাকার সচেতন মহল জোর দাবী জানিয়েছেন।
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর