শিরোনাম

‘নাম ভুল করায়’ শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে এক ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, নভেম্বর ১৩, ২০২২ ৯:০০:১০ অপরাহ্ণ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে ‘নাম ভুল করায়’ শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে এক ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান লিটনের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

জানা গেছে, গত শনিবার সকাল ১০টার দিকে ফার্মেসি বিভাগের (৪৬তম ব্যাচ) আবাসিক শিক্ষার্থী আবরারুল হক আবরারকে তিন দফায় মারধর করেন একই ব্যাচের আইন ও বিচার বিভাগের শিক্ষার্থী ছাত্রলীগ কর্মী মুবতাসিন ফুয়াদ। তারা দুজনেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার সকালে তৃতীয় তলায় ছাত্রলীগের ‘ব্লকে’ এক বন্ধুর কাছে বই চাইতে যান ওই শিক্ষার্থী। এ সময় ফুয়াদকে ভুক্তভোগী আবরার ভুলবশত ‘রিফাত’ নামে ডাক দেন। এ সময় ভুল নামে ডাকায় ছাত্রলীগ কর্মী ফুয়াদ আবরারের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে নাম-পরিচয় জানতে চান। পরে তিন দফায় আবরারকে মারধর করেন ফুয়াদ।

আবরারুল হক আবরার জানান, ‘ফুয়াদকে ভুল করে ‘রিফাত’ নামে ডাকায় আইন ও বিচার বিভাগের (৪৬তম ব্যাচ) সহপাঠী মুবতাসিন ফুয়াদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের তৃতীয় তলায় তাকে লাঞ্ছিত করে এবং তিন দফায় মারধর করেন।’

এ বিষয়ে আবরার হল কর্তৃপক্ষের কাছে মৌখিক অভিযোগ করেন। মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে হলের প্রাধ্যক্ষ, আবাসিক শিক্ষকরা তাৎক্ষণিক একটি সভা ডেকে উভয়ের সাথে কথা বলে বিষয়টি সমঝোতা করে দেন। এ সময় ফুয়াদ অভিযোগ স্বীকার করেন।
তবে অভিযোগকারী আবরার জানান, তাকে ‘জোড়পূর্বক’ সমঝোতা করতে বাধ্য করা হয়েছে। তিনি বিষয়টিতে সন্তুষ্ট নন।’

এ দিকে প্রশাসনের দায় এড়ানোর অপচেষ্টার নিন্দা জানিয়েছে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা। রবিবার (১৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সভাপতি আবু সাঈদ ও সাধারণ সম্পাদক কনোজ কান্তি রায় স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ নিন্দা জানানো হয়।

Spread the love
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us