শিরোনাম

নিহতদের স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছিলো বুড়িগঙ্গার দু’পাশ

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, জুন ৩০, ২০২০ ৯:৩০:৩২ অপরাহ্ণ
নিহতদের স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছিলো বুড়িগঙ্গার দু’পাশ
নিহতদের স্বজনদের আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠেছিলো বুড়িগঙ্গার দু’পাশ

রাজধানীর শ্যামবাজার এলাকায় বুড়িগঙ্গা নদীতে লঞ্চডুবির ঘটনায় নিহতের পরিবারের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছিল বুড়িগঙ্গার দু’পাশ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গ। কিছুক্ষণের জন্য মনে হয়েছিল মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে এলাকাটি। স্বজনদের কান্না আর আহাজারি ভারী করে ফেলেছিল এলাকাটির আকাশ বাতাস। বিকেল পর্যন্ত উদ্ধারকৃত ৩০ টি লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নিহতদের মধ্যে রয়েছেন মুন্সিগঞ্জ এর বাসিন্দা মারুফা আক্তার, তালহা, আলম ব্যাপারী, আমির হোসেন, সুমনা আক্তার, তামিম হোসেন, মনির হোসেন, ময়না আক্তার, শামীম হোসেন, শাহাদাত হোসেন খান, আফজাল শেখ, আবু তাহের, মিল্লাত হোসেন, রুমা আক্তার, বিউটি আক্তার, আয়েশা বেগম, সুমন তালুকদার হাসিনা বেগম, সিফাত হোসেন প্রমুখ।

নিহত বিউটি আক্তারের বোন জামাই শামীম হোসেন ও বোন নাসিমা আক্তার নয়া দিগন্তকে বলেন, পুরান ঢাকার জিঞ্জিরা এলাকায় একটি বোতল ফ্যাক্টরিতে কাজ করেন বিউটি। কাজে যোগ দেয়ার উদ্দেশ্যে তিনি ঢাকায় এসেছিলেন। কিন্তু লঞ্চ ডুবিতে নিহত হয়ে লাশ হয়ে ঘরে ফিরছেন তিনি। তারা আরো জানান, দুই বোন এক ভাইয়ের মধ্যে বিউটি সংসারের মেঝ। তার আয়ের টাকার উপর অনেকটা নির্ভর করতে হতো সংসারের বৃদ্ধ বাবা-মা ও ছোট ভাইকে। তার মৃত্যুতে পরিবর্তে নিঃস্ব হয়ে গেছে।

নিহত মারুফ আক্তারের স্বামী বেলায়েত হোসেন নয়া দিগন্তকে বলেন, ‘দোকানের কাজে আমি ব্যস্ত থাকায় আজ সকাল সাতটা বাজে আমার স্ত্রী মারুফা আক্তার (২৮)তার বড় বোনজামাই আলম বেপারীর সাথে আমার আড়াই বছরের শিশু সন্তান তালহাকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য লঞ্চ যোগে ঢাকায় রওয়ানা হন। বেলা তিনটার দিকে আমরা খবর পাই লঞ্চ দুর্ঘটনায় তারা তিনজনই নিহত হয়েছেন। নিহতের সংবাদ শুনে আমার পরিবার শোকে কাতর হয়ে গেছে। আমরা বুঝতে পারছি না আমরা এখন কী করবো। আল্লাহ এমন কঠিন পরীক্ষা আমাদের কেন দিলো। তিনি আরো বলেন, আমার সাত বছর বয়সী আরেকটি শিশু সন্তান (নাইমা ইসলাম) রয়েছে। আমার এই সন্তান কোথায় মা খুঁজে পাবে। আল্লাহ আমার সন্তান ও আমার সন্তানের মাকে কেন এভাবে নিয়ে গেলো বলে বিলাপ করতে থাকেন বেলায়েত হোসেন।’

এদিকে নিহত মারুফ ইসলামের বড় বোন জামাই নিহত আদম ব্যাপারীর মামাতো ভাই আবদুল মান্নান শেখ নয়া দিগন্তকে জানান, নিহত আলম বেপারীর দুটি শিশু সন্তান রয়েছে। তাদের একজনের বয়স ৮ বছর, অপরজনের বয়স ৬ বছর। আলম বেপারী ছিলেন তার পরিবারের একমাত্র আয়ের এর উৎস। আলম বেপারী এর মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছেন বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, এখন নিহতের দুই শিশু সন্তানের ভবিষ্যৎ কি সেটা আমরা বলতে পারি না।

এছাড়া লঞ্চ ডুবির ঘটনার পর থেকে নদীর দু’পাশে ভীড় জমান হাজার হাজার উৎসুক মানুষ। আবার কেউ কেউ নৌকা রিজার্ভ করে নদীর মাঝে দেখতে যান লাশ উদ্ধার পক্রিয়া। এক একটি লাশ উদ্ধারের সাথে সাথে কান্নায় ভারি হয়ে যায় পুরো। স্বজনদের পাশাপাশি কান্নায় ভেঙে পড়েন উৎসুক অনেক মানুষও।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর