শিরোনাম

পাবনায় ঘোষণার পরও হঠাৎ রহস্যজনকভাবে উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ!

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২১ ১২:৪৩:৪৬ অপরাহ্ণ
পাবনায় ঘোষণার পরও হঠাৎ রহস্যজনকভাবে উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ!
পাবনায় ঘোষণার পরও হঠাৎ রহস্যজনকভাবে উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ!

এস, এম, সাইফুর রহমান-পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার ভাঙ্গুড়ায় রেলের জমিতে শতাধিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে গত ৪-৫ দিন ধরে প্রচারণা চালান পাকশী (পশ্চিমাঞ্চল) রেলওয়ে কর্মকর্তারা। এ উপলক্ষে বুধবার উচ্ছেদ অভিযান চলবে এমন ঘোষণা দিয়েছিলেন ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান। কিন্তু হঠাৎ করেই উচ্ছেদ অভিযানের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন ওই কর্মকর্তা। রহস্যজনক কারণে ওই কর্মকর্তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন। মোবাইল কোর্টে ১০ জন অবৈধ ভবন নির্মাতাকে ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জানা যায়, গত দুই যুগ আগে ভাঙ্গুড়া বাজারের ভেতরের প্রায় দেড় কিলোমিটার রেললাইন পরিত্যক্ত হয়। উপজেলা খাদ্য গুদামের সঙ্গে রেল যোগাযোগে এই লাইন ব্যবহার করা হতো। এই লাইন পরিত্যক্ত হওয়ার পরেই স্থানীয় প্রভাবশালীরা রেলের শত বিঘা জমি দখল করে নেন। প্রথমদিকে দখলদাররা এসব জমিতে অস্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করলেও কয়েক বছর ধরে স্থায়ী স্থাপনা নির্মাণ করছেন। এভাবে ভাঙ্গুড়া ও শরৎনগর বাজারে একের পর এক অবৈধ ভবন নির্মাণ চলতে থাকে। সম্প্রতি ভাঙ্গুড়া ও শরৎনগর বাজারে অন্তত ১৫ জন ব্যবসায়ী আরসিসি ভীত দিয়ে বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ করছেন। এ নিয়ে ১০ ফেব্রুয়ারি কালের কণ্ঠের প্রিয় দেশ পাতায় ‘অবৈধ ভবন এক রহস্য’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর গত সোমবার রেলওয়ের কর্মকর্তারা শহরের সকল অবৈধ স্থাপনা মালিকদের নিজ উদ্যোগে সরিয়ে নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সঙ্গে নিয়ে মাইকিং করেন। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে স্থাপনা সরিয়ে না নিলে গতকাল বুধবার সকল অবৈধ ভবন উচ্ছেদ করা হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। এদিকে এ ঘোষণা দেয়ার পর থেকেই ভাঙ্গুড়া ও শরৎনগর বাজারে বহুতল ভবন নির্মাণকারীদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। তাই উচ্ছেদ অভিযান বন্ধে দখলদাররা বিভিন্ন মাধ্যমে তদবির শুরু করেন সংশ্লিষ্ট অফিসে। এরপর হঠাৎ করে রেলওয়ে পাকশী অফিসের ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা নুরুজ্জামান উচ্ছেদ অভিযান না চালিয়ে বুধবার দিনভর মোবাইল কোর্ট করে ১০ জন ভবন মালিককে ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এ বিষয়ে ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে উচ্ছেদ অভিযানের পরিবর্তে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us