শিরোনাম

পাবনা সদর হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স চালক-আনসার সংঘর্ষ

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শুক্রবার, এপ্রিল ২, ২০২১ ১২:৩১:৫২ পূর্বাহ্ণ
পাবনা সদর হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স চালক-আনসার সংঘর্ষ
পাবনা সদর হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্স চালক-আনসার সংঘর্ষ

মোঃ লুৎফর রহমান
সোনার বাংলা ৩৬৫
সুজানগর, পাবনা।

পাবনা জেলারেল হাসতালে বহিরাগত অ্যাম্বুলেন্স চালকদের সাথে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

১লা এপ্রিল দুপুরে বহিরাগতরা হাসপাতাল চত্বরের মধ্যে আসনার ক্যাম্পসহ বিভিন্ন স্থানে দলবদ্ধ ভাবে হামলা ও ভাঙচুর চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় হাসপাতাল চত্বরে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছে।

হাসপাতালের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যরা নিরাপত্তা হিনতার মধ্যে রয়েছে বলে জানিয়েছেন। ঘটনার সুষ্ঠু বিচার না হওয়া পর্যন্ত নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন তারা।
গত বুধবার দিবাগত রাতে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সদস্যরা জানান, হাসপাতালের মধ্যে বহিরাগত এম্বুলেন্স চালকেরা হাসপাতালের মধ্যে রোগীদের সাথে ঝামেলা করছিলো।

হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নির্দেশক্রমে বহিরাগতদের বের হতে বল্লে তাদের উপর চড়াও হয়ে একপর্যায়ে ধাক্কা ধাক্কির ঘটনা ঘটে। উক্ত ঘটনার সূত্র ধরে বৃহঃবার সকালে স্থানীয় এম্বুলেন্স চালকেরা দলবদ্ধভাবে তারা হাসপাতালে অস্থায়ী আনসার ক্যাম্পসহ হাসপাতাল চত্বরের বিভিন্ন স্থানে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে।

আনসার সদস্যরা প্রতিরোধ করার চেষ্টা করলে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ঘটনা ঘটে। এই ঘটনার জরুরী ভিত্তিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বৈঠক করে বহিরাগতদের সকল এম্বুলেন্স বের করে দেয়। পরে বহিরাগত অ্যাম্বুলেন্স চালকেরা হাসপাতাল চত্বরে বিক্ষোভ মিছিল করে।

হাসপাতালে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
হাসপাতালের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার সদ্যরা আমাদের কাছ থেকে এম্বুলেন্স প্রতি টাকার দাবি করেছে,: অর্থ না দেয়ার জন্য আনসার সদ্যরা আমাদের সাথে ঝামেলা করছে। আনসার ক্যাম্পে হামলা বিষটি অস্বীকার করেন তারা।

প্রতিদিন হাসপাতাল চত্বরে থাকা সিএনজি ও অটোরিক্সার কাছ থেকে আনসার সদস্যরা অর্থ আদায়ে করে থাকে বলে অভিযোগ রয়েছে।

হাসপাতালের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা প্লাটন কমান্ডার মোঃ আলমগীর হোসেন বলেন, এই হাসপাতালে দিনরাত সব মিলিয়ে ১২ জন আসনার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করেন। হাসপাতালের বাহিরের বহিরাগতরা এই হাসপাতালে তাদের রাজত্ব কায়েম করেছে। যা খুশি তারা করছে। তাদেরকে কোন কিছুই বলা যায়না।

গতকালের নিরাপত্তা কর্মীদের সাথে অ্যাম্বুলেন্স চালকদের কথা কাটাকাটি হয়। রাতেই আমি বিষটি সমাধান করে দিয়েছি। কিন্তু আজ সকালে দলবদ্ধ ভাবে আবারো তারা আমাদের আনসার সদস্যসহ হাসপাতালে অস্থায়ী আনসার ক্যাম্পে দলবদ্ধ ভাবে ভাংচুর করেছে।

শুধু আনসার ক্যাম্প নয় তারা হাসপাতালেও হামলা করে ভাঙচুর করেছে। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষী ব্যক্তি বা সন্ত্রাসীদের শাস্তি নিশ্চিত করা, ঘটনার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত আমরা দায়িত্ব পালন করবো না।

এবিষয়ে পাবনা জেনারেল হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডাঃ মোঃ অায়ুব হোসেন বলেন, হাসপাতালের নিরাপত্তার কারনে আর করোনা পরিস্থিতির জন্য এক সপ্তাহ আগে সভা করে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

বহিরাগতরা যখন তখন হাপাতালে প্রবেশ করে যা খুশি তাই করছে। আমি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনসহ সকলকে বিষয়টি অবহিত করেছি।

এই হাসপাতাল চত্বরে নেশা পর্যন্ত করা হয়। এখন আবার তারা দলবদ্ধভাবে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যদের উপর হামলা করেছে তাদের অন্যায় কাজের প্রতিবাদ করা জন্য। আমরা এই হাসপাতালে সুন্দর পরিবেশ ফিরিয়ে আনার জন্য কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

যারা এধরনের হামলা ও ভাঙচুরের কাজ করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
হাসাপাতালের স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনার জন্য প্রশাসনসহ সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us