শিরোনাম

পেঁয়াজ ওঠানোর মৌসুম শুরু হলেও কৃষকের চোখে-মুখে দুশ্চিন্তা আর হতাশার ছাপ !!

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, মার্চ ৩১, ২০২১ ৭:২১:২৬ অপরাহ্ণ
পেঁয়াজ ওঠানোর মৌসুম শুরু হলেও কৃষকের চোখে-মুখে দুশ্চিন্তা আর হতাশার ছাপ !!
পেঁয়াজ ওঠানোর মৌসুম শুরু হলেও কৃষকের চোখে-মুখে দুশ্চিন্তা আর হতাশার ছাপ !!
গোলাম মোস্তফা-মোস্তাক:

পাবনা জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে পেঁয়াজ ওঠানোর মৌসুম শুরু হয়েছে। জেলার পাবনা সদর, সুজানগর, বেড়া ও সাথিয়া উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে নতুন পেঁয়াজের আমদানি লক্ষ্য করা গেছে। মৌসুমের শুরুতেই পেঁয়াজের দাম নিয়ে কৃষকদের মাঝে দুশ্চিন্তা আর হতাশার তৈরী হয়েছে।

পাবনা জেলার সবচেয়ে বেশী পেঁয়াজ উৎপাদন এলাকা হিসাবে পরিচিত সুজানগর উপজেলার গাজনার বিল এলাকার কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, এ বছর তারা পেঁয়াজের চাষ করে লোকসানের মুখে পড়েছে। এলাকার একজন কৃষক জানান গত বছরের চেয়ে দশ গুন বেশী দামে

অর্থাৎ 10-15 হাজার টাকা কেজিতে পেঁয়াজের বীজ ক্রয় করতে হয়েছে তা ছাড়া অন্যান্য খরচ মিলে প্রতি মন পেঁয়াজ আবাদে তাদের প্রায় নয় শত থেকে এক হাজার টাকা খরচ হয়েছে। বর্তমানে তাদের এক হাজার থেকে 12 শত টাকা মন দরে পেঁয়াজ বিক্রি করতে হচ্ছে। ভরা মৌসুম শুরু হলে পেয়াজের দাম 8 শত টাকা মনে নেমে আসতে পারে বলে তাদের ধারনা।

তাছাড়া প্রতিবেশী দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ না করলে কৃষকরা ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়তে হবে বলে তারা আশংকা করছেন। জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায় এ বছর জেলায় 53 হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে যা গত বছরের চেয়ে 5 হাজার হেক্টর বেশী এবং পেঁয়াজের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সাড়ে 6 লক্ষ মেট্রিক টন।

আবহাওয়া অনুকুল থাকায় এবার পেঁয়াজের বাম্পর ফলন হবে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট কৃষকরা। বাংলাদেশ কৃষি অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে পেঁয়াজের চাহিদা রয়েছে ৩০ লাখ টনের মতো। যার প্রায় এক চর্তথাংশই উৎপাদন করছে পাবনা এলাকার পেঁয়াজ চাষীরা ।

ফলে ভরা মৌসুমে পেঁয়াজ ওঠানোর পর তা সংরক্ষনের ব্যবস্থা থাকলে কৃষকরা তাদের লোকসানের সম্ভাবনা থেকে বেঁচে যাবে বলে মনে করেন এলাকার পেঁয়াজ চাষীরা।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us