শিরোনাম

ফেঁসে গেলেন মা,মেয়ে ধর্ষণের মামলা দিয়ে

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, মার্চ ৩, ২০২১ ১:৪৫:৪৭ পূর্বাহ্ণ
ফেঁসে গেলেন মা,মেয়ে ধর্ষণের মামলা দিয়ে
ফেঁসে গেলেন মা,মেয়ে ধর্ষণের মামলা দিয়ে

নোয়াখালীতে এক মাদ্রাসাছাত্রীকে একাধিকবার গণধর্ষণ, ভিডিও ধারণ ও অপহরণের অভিযোগ এনে মামলা করেছিলেন তার মা বিউটি আক্তার। তবে মামলাটি মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় উল্টো বাদী বিউটির বিরুদ্ধেই এবার মামলা করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার দুপুরে বেগমগঞ্জ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেন।

বিউটির বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, তিনি তার মেয়েকে (১৭) যৌন ব্যবসায় বাধ্য করেন। মামলায় বিউটি ছাড়াও আলাইয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিসুর রহমানসহ পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে স্থানীয় লোকজন বিক্ষোভ ও বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন।পুলিশ জানায়, পুলিশের দায়ের করা মামলায় অভিযুক্ত ১ নং আসামি গত বৃহস্পতিবার রাতে তার মেয়েকে ধর্ষণ, বিবস্ত্র করে ছবি তোলা ও অপরহরণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ এনে চারজনের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা করেন।

মামলার সূত্র ধরে অভিযান চালিয়ে আসামি ফয়সাল, সাইফুল ইসলাম ইমন ও জোবায়েরকে গ্রেফতার করা হয়। গত শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকার সাভারের পূরগাঁও এলাকার রুবি নামে একজনের বাসা থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন ভিকিটিম অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত-৩ এ বিচারকের কাছে স্বেচ্ছায় ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন।

পুলিশ আরও জানায়, জবানবন্দি ও মামলার তদন্ত করতে গিয়ে জানা গেছে, ২০১৮ সঙ্গে ভিকটিম একটি মাদ্রাসায় অষ্টম শ্রেণিতে পড়ালেখা করে। ২০১৭ সাল থেকে ২৮ ডিসেম্বর ২০২০ সাল পর্যন্ত ভিকটিমকে দিয়ে তার মা বিউটি আক্তার জোর করে টাকার বিনিময়ে দেহ ব্যবসা করাতেন। বিভিন্ন লোকের থেকে টাকা নিয়ে নিজের মেয়েকে কখনো নিজ বাড়িতে, কখনো ঢাকা বা চট্টগ্রামে পাঠাতেন বিউটি।

বিষয়টির প্রতিবাদ করলে কয়েকবার ভিকটিমের হাত-পা বেঁধে মারধর করেন বিউটি। আগের মামলার সাক্ষী ও বর্তমান মামলার আসামি মোজ্জামেল হোসেন বিউটিকে টাকা দিয়ে ঘরে এসে মেয়েটির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়তেন। এক রাতে স্থানীয় ফয়সাল ও জোবায়ের তাদের এ অবস্থায় দেখে ফেলে দু’জনের বিবস্ত্র ছবি ও ভিডিও মোবাইলে ধারণ করেন।

পরে মোজাম্মেলকে বের করে দিয়ে ওই রাতে ভিকটিমকে ধর্ষণ করেন ফয়সাল ও জোবায়ের। পরে বিউটি চেয়ারম্যান আনিসুর রহমানের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তার বাড়িতে মেয়েকে পাঠান। চেয়ারম্যান আনিস নিজ বাড়িতে রেখে একাধিকবার ‘ধর্ষণ’ করেন ভিকটিমকে। এদিকে, ঘটনার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে মঙ্গলবার বিকেলে আলাইয়াপুর ৬ নং ওয়ার্ড নাপিতের পোল এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও হীরাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে মনববন্ধন করেন স্থানীয় লোকজন। পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন গণমাধ্যমকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us