শিরোনাম

ফেনীতে মন্দিরে হামলা ঘটনায় আরও ১০জন গ্রেপ্তার , ৪ জনের স্বীকারোক্তি

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, নভেম্বর ২৪, ২০২১ ৫:৪৩:৪৮ অপরাহ্ণ
ফেনীতে মন্দিরে হামলা ঘটনায় আরও ১০জন গ্রেপ্তার , ৪ জনের স্বীকারোক্তি
ফেনীতে মন্দিরে হামলা ঘটনায় আরও ১০জন গ্রেপ্তার , ৪ জনের স্বীকারোক্তি
পেয়ার আহাম্মদ চৌধুরী, ফেনী জেলা প্রতিনিধি:- ফেনীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির, দোকানপাটে হামলা-ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় আরও ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। তাদের মধ্যে ৪জন সোমবার ২২ নভেম্বর আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

সিআইডি জানায়, রোববার রাতে জেলা শহর ও বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই ১০ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বাড়ি বিভিন্ন জেলায় হলেও তারা সবাই ফেনীতে বসবাস করেন। পুলিশ জানায়, হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার একাধিক আসামি এর আগে ফেনীর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব আসামিদের নাম আনেন।

এ ছাড়া হামলার একাধিক ভিডিও চিত্রে তাদের দেখা গেছে। সেগুলো যাচাই–বাছাই শেষে সিআইডি নিশ্চিত হয়েই গতকাল রাতে তাদের জেলার বিভিন্ন এলাকায় পৃথক পৃথক অভিযানে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন পিরোজপুরের রাব্বি ওরফে রাকিব (১৮), বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের জামাল বাদশা (২০), একই এলাকার হেলাল হোসেন (২৪), ফেনী সদর উপজেলার তুহিন হোসেন (২৬), বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের ইমরান হোসেন ইমন (১৯), লক্ষ্মীপুর সদরের খায়রুল ইসলাম হৃদয় (১৯), ফেনী সদর উপজেলার শাহরিয়ার আমির রায়হান (১৬), ফেনীর সোনাগাজীর রাহাদুল ইসলাম (১৬), একই এলাকার আরমান হোসেন ফাহাদ (১৭) ও ইমাম হোসেন সারুফ (১৬)।
এদের মধ্যে রাব্বি ও জামাল দুজন ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসানের আদালতে এবং হেলাল ও তুহিন দুজন ফেনীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ধ্রুব জ্যোতি পালের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।
পরে তাদের ফেনী কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বাকিদের মধ্যে খায়রুল ও ইমরানকেও আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তবে শাহরিয়ার (১৬), রাহাদুল (১৬), আরমান (১৭) ও ইমাম (১৬) এই ৪জন অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় তাদের ফেনীর শিশু আদালতে পাঠানো হয়। আদালতের বিচারক ওসমান হায়দার ওই ৪জনকে টঙ্গীর শিশু–কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর আদেশ দিয়ে ফেনী কারাগারে পাঠিয়ে দেন। এ নিয়ে মন্দির-আশ্রমে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় এ যাবৎ মোট ৩৬ জনকে গ্রেপ্তার হয়েছে। তাদের মধ্যে ইতিমধ্যে ১০ জন আসামি দোষ স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত,ফেনীতে গত ১৬ অক্টোবর রাতে শহরের কালীপাল গাজীগঞ্জ মহাপ্রভুর আশ্রম, ট্রাংক রোড ও বড় বাজারের দুটি কালীমন্দিরে হামলা, শহরের তাকিয়া রোডে হিন্দুদের বেশ কিছু দোকানপাটে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় পুলিশ, র‍্যাব ও মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে ফেনী মডেল থানায় মোট চারটি পৃথক মামলা করা হয়। এর মধ্যে ইতিমধ্যে দুটি মামলা ফেনী থানা-পুলিশ থেকে সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us