শিরোনাম

মহানবী (সা.)-এর সম্মান কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : সোমবার, মার্চ ১, ২০২১ ২:০৮:৪১ পূর্বাহ্ণ
কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি মহানবী (সা.)-এর সম্মান
কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি মহানবী (সা.)-এর সম্মান

ইসলাম মানুষের অভিন্ন মানবিক মর্যাদা নিশ্চিত করেছে। ইসলামের দৃষ্টিতে ভাষা, বর্ণ ও আঞ্চলিকতা কখনো শ্রেষ্ঠত্বের মাপকাঠি হতে পারে না। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আমি আদম-সন্তানদের মর্যাদা দান করেছি; স্থলে ও সমুদ্রে তাদের চলাচলের বাহন দিয়েছি; তাদের উত্তম জীবিকা দান করেছি এবং আমি যাদের সৃষ্টি করেছি তাদের অনেকের ওপর তাদেরকে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছি।’ (সুরা বনি ইসরাইল, আয়াত : ৭০)

বর্ণবৈচিত্র্যের রহস্য

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ মানবজাতির বিভিন্ন জাতি, গোষ্ঠী ও বর্ণে বিভক্ত হওয়ার রহস্য উন্মোচন করে বলেন, ‘হে মানবজাতি, নিশ্চয়ই আমি তোমাদের সৃষ্টি করেছি একজন পুরুষ ও একজন নারী থেকে এবং তোমাদের বিভক্ত করেছি বিভিন্ন সম্প্রদায় ও গোত্রে যেন তোমরা পরস্পরকে চিনতে পারো। নিশ্চয়ই আল্লাহর কাছে সেই বেশি সম্মানী যে বেশি আল্লাহভীরু।’ (সুরা হুজরাত, আয়াত : ১৩)

ইসলামে বর্ণবৈষম্য নিষিদ্ধ

ইসলাম বর্ণবৈষম্যসহ যেকোনো ধরনের বৈষম্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। তবে মানুষ তার ব্যক্তিত্ব ও গুণাবলির দ্বারা অন্যের ওপর মর্যাদা লাভ করতে পারে। বিদায় হজের ভাষণে মহানবী (সা.) বলেন, ‘হে মানুষ, তোমাদের প্রতিপালক এক, তোমাদের পিতা এক, তোমরা সবাই এক আদমের সন্তান এবং আদম মাটি থেকে সৃষ্ট। তোমাদের মধ্যে সেই সর্বাপেক্ষা বেশি সম্মানিত যে সর্বাপেক্ষা বেশি আল্লাহভীরু। কোনো আরব কোনো অনারবের ওপর আল্লাহভীতি ছাড়া বেশি মর্যাদাবান ও সম্মানী হতে পারে না।’ (সিরাতে খাতামুল আম্বিয়া, পৃষ্ঠা ১০০)

অনন্য মর্যাদায় সমাসীন সাত কৃষ্ণাঙ্গ সাহাবি

ইসলাম যে বৈষম্যহীন সমাজের দীক্ষা দিয়েছে তার প্রতিফলন রাসুলের যুগেই সমাজে সমাজে খুঁজে পাওয়া যায়। যে সমাজে কৃষ্ণাঙ্গ ও দাস বহু নারী ও পুরুষ অনন্য মর্যাদায় সমাসীন হন। এমন কয়েকজন কৃষ্ণাঙ্গ সাহাবির পরিচয় তুলে ধরা হলো।

১. উম্মে আইমান (রা.) : তিনি ছিলেন নবীজি (সা.)-এর পৈতৃক সূত্রে পাওয়া দাসী। তবে শৈশবে মাকে হারানোর পর তিনি উম্মে আইমান (রা.)-এর কাছে প্রতিপালিত হন। তিনি নিজের জীবনকে রাসুলের সেবায় উৎসর্গ করেন। নবীজি (সা.) তাঁকে মায়ের মতো সম্মান করতেন এবং ভালোবাসতেন। তিনি তাঁকে জান্নাতের সুসংবাদও দিয়েছিলেন। নিজের পালকপুত্র জায়েদ ইবনে হারিসা (রা.)-এর সঙ্গে তাঁকে বিয়ে দেন। রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁকে ‘মা’ বলে সম্মোধন করতেন এবং বলতেন, ‘তিনি আমার পরিবারের অবশিষ্টাংশ।’

২. উসামা বিন জায়েদ (রা.) : উসামা বিন জায়েদ (রা.) ছিলেন রাসুল (সা.)-এর পালকপুত্র জায়েদ (রা.)-এর ছেলে। পিতা-পুত্র উভয়কেই নবীজি খুব ভালোবাসতেন। রাষ্ট্রীয় বহু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব নবীজি (সা.) তাঁদের ওপর অর্পণ করেন। তাঁর জীবদ্দশায় শেষ যে বাহিনী জিহাদের উদ্দেশ্যে প্রেরণ করেছিলেন তাঁর সেনাপতি নিযুক্ত করা হয়েছিল উসামা (রা.)-কে। যদিও সেই বাহিনীতে ওমর ও আবু বকর (রা.)-এর মতো আরো বহু মর্যাদাবান সাহাবি উপস্থিত ছিল। অথচ তিনি ছিলেন দাসের পুত্র ও কৃষ্ণাঙ্গ।

৩. সাদ আল-আসওয়াদ (রা.) : তিনি ছিলেন দরিদ্র ও কৃষ্ণবর্ণ। নিজের অসহায় অবস্থা থেকে একদিন তিনি নবীজি (সা.)-এর কাছে দুঃখ করে বলেছিলেন, ‘হে আল্লাহর রাসুল, আমিও কি জান্নাতে যাব? আমি তো নিচু মাপের ঈমানদার হিসেবে বিবেচিত হই, কোনো মেয়ে আমার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে রাজি হয় না।’ নবীজি (সা.) তাঁর দুঃখ বুঝতে পেরে তাঁকে ধনাঢ্য এক ব্যক্তির রূপসী মেয়ের জন্য বিয়ের প্রস্তাব পাঠান। রাসুলুল্লাহ (সা.) প্রস্তাব পাঠিয়েছেন শুনে ওই ব্যক্তির মেয়ে বিয়েতে রাজি হয়। কিন্তু তাদের বিয়ের আগেই সাদ (রা.) শহিদ হয়ে যান। নবীজি তাঁকে জান্নাতের সুসংবাদ দেন এবং তাঁর সম্মানে জান্নাতের হুররা যে দুনিয়াতে অবতরণ করে তাঁর জন্য প্রতিযোগিতা শুরু করেছে তা অন্য সাহাবিদের অবগত করেন।

৪. জুলাইবিব (রা.) : তিনি নবীজি (সা.)-এর একজন কম পরিচিত সাহাবি। জুলাইবিব আসলে কোনো নাম নয়, এটি একটি উপনাম। আরবিতে এ শব্দের অর্থ ‘ক্ষুদ্র্র কিন্তু পূর্ণতাপ্রাপ্ত’। তাঁকে এই নামে ডাকা হতো। কারণ তিনি ছিলেন উচ্চতায় অনেক খাটো। ইসলাম-পূর্ব সমাজে তাঁকে ‘দামিম’ নামে ডাকা হতো। যার অর্থ কুশ্রী, বিকৃত অথবা দেখতে বিরক্তিকর। ইসলাম গ্রহণের পর তাঁকে জুলাইবিব নামে ডাকা হতো। এক জিহাদে শহীদ হওয়ার পর নবীজি তাঁকে জান্নাতের সুসংবাদ দেন, তাঁকে নিজ হাতে করে কবরে নামান এবং তাঁর প্রতি নিজের সন্তুষ্টি প্রকাশ করে আল্লাহর কাছে সুপারিশ করেছেন।

৫. আম্মার বিন ইয়াসির (রা.) : আম্মার বিন ইয়াসির (রা.)-এর পিতা-মাতা উভয়েই ছিলেন ক্রীতদাস। আবার তাঁর গায়ের রং ছিল কালো। রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁকে খুব ভালোবাসতেন। তিনি তাঁকে জীবদ্দশায় শাহাদাত ও জান্নাতের সুসংবাদ দিয়েছেন। মক্কি যুগে কঠোর নির্যাতন ভোগ করেও তাঁর পরিবারের কেউ ইসলাম থেকে দূরে সরেননি। এমনকি তাঁর মা সুমাইয়া (রা.) ইসলামের জন্য প্রথম শহীদ হয়েছিলেন।

৬. আবু জর গিফারি (রা.) : দুনিয়াবিরাগী সাহাবিদের অন্যতম ছিলেন তিনি। ইসলাম গ্রহণের আগে গোত্রের অভিজাত ও নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি হিসেবে গণ্য হলেও ইসলাম গ্রহণের পর তিনি সব কিছু ত্যাগ করে সাধারণ জীবন বেছে নেন। তিনি সার্বক্ষণিক নবীজির সাহচর্য গ্রহণ করেছিলেন। তিনি নবীজি (সা.)-কে খুব বেশি ভালোবাসতেন এবং নবীজি (সা.)-ও তাঁকে ভালোবাসতেন। রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর ইন্তেকালের পর তিনি স্বেচ্ছা নির্বাসন বেছে নেন এবং মরুভূমিতে মৃত্যুবরণ করেন।

৭. বেলাল হাবশি (রা.) : ইসলামের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় ব্যক্তিত্ব বেলাল (রা.)। কঠিন নির্যাতনের মধ্যেও যিনি ইসলামের ওপর ছিলেন পাহাড়ের মতো অটল। তাঁকে বলা হয়, রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর মুয়াজ্জিন। মহানবী (সা.) তাঁকে মসজিদে নববী ও সফরে মুয়াজ্জিন হিসেবে নিযুক্ত করেন। জান্নাতে তাঁর পায়ের আওয়াজ শুনে এসে নবীজি তাঁকে জান্নাতের সুসংবাদ দেন। এমনকি তাঁকে এ কথাও বলেন যে হাশরের ময়দানে কঠিন পরিস্থিতিতে তিনি নবীজি (সা.)-এর বাহনের লাগাম ধরে আগে আগে হাঁটবেন এবং তাঁর সঙ্গে জান্নাতে প্রবেশ করবেন।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us