শিরোনাম

মহিপুরে উভয় গ্রুপের সংঘর্ষে নারী-পুরুষসহ গুরুতর আহত-১২ ॥

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শুক্রবার, এপ্রিল ২, ২০২১ ৮:০০:৫১ অপরাহ্ণ
মহিপুরে উভয় গ্রুপের সংঘর্ষে নারী-পুরুষসহ গুরুতর আহত-১২ ॥
মহিপুরে উভয় গ্রুপের সংঘর্ষে নারী-পুরুষসহ গুরুতর আহত-১২ ॥

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি  ঃ   মহিপুরে বিরোধীয়
জমিতে ডাল তোলা নিয়ে সংঘর্ষ ও হামলার শিকার হয়েছে মানবাধিকার
কর্মী-নারীসহ ১২জন গুরুতর আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে মহিপুরের
বিপিনপুর গ্রামের আমবাগান এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। মহিপুর থানা পুলিশ
ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।  গুরুতর আহত ২জনকে উন্নত
চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালীতে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যান্য আহতদের উদ্ধার করে
মহিপুর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহতরা হলেন মো: নজরুল হাওলাদার ওরফে নয়ন
চৌধুরী (৩৭), মোসাঃ সালমা বেগম (৩৫), মানবাধিকার কর্মী মো: সুমন হাওলাদার
(৩৪), মোসা: সাবিনা বেগম (৩০), মো: রাকিব (২০), মো: হাসিব (২৫), মো: সবুজ
(২৯)। অন্যদিকে হামলাকারীদের পক্ষে মো: এরশাদ সিকদার (৩৩) মো: সুলতান খান
(৫০) খলিল (৪৫) ইমরান (২৩) নুরছাইদ (৫০) আহত হয়েছে বলে দাবী করা হয়।
আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য অনেককে কলাপাড়া
হাসপাতালে পাঠানো হয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, জে এল শিববাড়িয়া মৌজার এস এ ১৬৯ খতিয়ানের  জমি ১.৩২
একর জমির মালিক তারা। ঐ জমি নিয়ে আদালতে দেওয়ানী মামলা রয়েছে। আদালত থেকে
তাদের পক্ষে রায় রয়েছে। ধানের মৌসুমে ওই জমিতে তারা ধান চাষ করেছেন।
রবিশস্য মৌসুমে ডালের চাষ করে তারা। ঐ ডাল তুলতে গেলে একই এলাকার ইসমাইল
সিকদার গংরা দেশীয় অশ্রসস্র নিয়ে তাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। উক্ত
বিরোধীয় জমিতে বিরোধীয়দের প্রবেশে আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

আহত সুমন হাওলাদার জানান, দীর্ঘ বছর ধরে চাষাবাদের মাধ্যমে ভোগ দখল করছে
তারা। তাদের চাষকৃত মুগডাল তুলতে গেলে ভূমিদস্যু ফারুক সিকদার, ইসমাইল
সিকদার, এসাহাক সিকদার , এরশাদ, রফিক, সুলতান খা, নুরছায়েদ, খলিল ,
ইমরান, নিজাম, ছরোয়ারসহ ৫০/৬০ জনের একটি গ্রুপ হামলা চালিয়ে মহিলাসহ
৯জনকে আহত করে। এদের মধ্যে নজরুল ও সালমা বেগমের মাথায় আঘাতে গুরুতর আহত
রয়েছে।
প্রতিপক্ষ আহত এরশাদ সিকদার জানান, আমাদের ডাল ক্ষেতে জোড়পূর্বক তারা ডাল
তুলতে আসলে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বাঁধে।

আহতদের পরিবার অভিযোগ করেন, ক্ষেতে ডাল তোলা নিয়ে হামলার শিকার হতে পারে
এ আশংকা থেকে আগেই মহিপুর থানা পুলিশের সহায়তা চাওয়া হয়েছে। পুলিশ হামলার
পর ঘটনাস্থলে গিয়ে হাজির হয়।

কুয়াকাটা ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের জরুরী বিভাগের ডা: সুবির পাল
জানিয়েছেন, ৯ জনের মধ্যে ১জন মহিলা ও ১ জন পুরুষ গুরুতর আহত বিধায়
কলাপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করা হয়েছে।

এবিষয়ে মহিপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, সংঘর্ষের ঘটনা
শুনে সরেজমিনে গিয়ে পরিদর্শন করেছি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া
হবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us