শিরোনাম

মাধবপুরে তেলিয়াপাড়া স্মৃতিসৌধে পর্যটকদের প্রবেশে বাধা, কৌশলে ডুকছে মাদকসেবীরা

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২০ ১২:২৬:১৪ পূর্বাহ্ণ
মাধবপুরে তেলিয়াপাড়া স্মৃতিসৌধে পর্যটকদের প্রবেশে বাধা, কৌশলে ডুকছে মাদকসেবীরা
মাধবপুরে তেলিয়াপাড়া স্মৃতিসৌধে পর্যটকদের প্রবেশে বাধা, কৌশলে ডুকছে মাদকসেবীরা
মাধবপুর প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার তেলিয়াপাড়া অবস্থিত ঐতিহাসিক  স্মৃতিসৌধে দর্শনার্থীদের প্রবেশে বাধা প্রদানের অভিযোগ পাওয়া গেছে,প্রতিদিন  শত শত পর্যটক এই ঐতিহাসিক স্থানটি দেখতে আসেন। কিন্তু তেলিয়াপাড়া চা বাগান কর্তৃপক্ষ পর্যটকদের প্রবেশে বাধা প্রদান করায় ঐতিহাসিক এই স্থানটি দেখা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দর্শনার্থীরা।  অথচ মাদকসেবীরা ঠিকই বিভিন্ন কৌশলে প্রবেশ করে মাদক সেবন করে স্মৃতিসৌধ এলাকার পবিত্রতা নষ্ট করছে। তেলিয়াপাড়া অবস্থিত ঐতিহাসিক  স্মৃতিসৌধে দর্শনার্থীরা
প্রবেশ করতে না পেড়ে অনেকেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন। তাদের মতে সার্বজনীন এই জায়গাটিতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা করে সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া উচিত। সরেজমিনে স্মৃতিসৌধ এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, স্মৃতিসৌধ এলাকায় ও এর আশপাশের চা বাগানে অসংখ্য ফেনসিডিল খালি বোতল পড়ে আছে। ঢাকা সিলেট পুরাতন মহাসড়ক থেকে তেলিয়াপাড়া চা বাগান ও বিজিবি ক্যাম্পে যাওয়ার রাস্তায় প্রবেশর পরে রাস্তার দুই পাশে চা বাগানে অসংখ্য ফেনসিডিলের খালি বোতল পড়ে থাকতে দেখা গেছে। এব্যাপারে পর্যটকদের প্রবেশে বাধা প্রদানকারী চা বাগানের নিরাপত্তা কর্মী জানায়, করোনা পরিস্থিতির কারনে আমরা কাউকে প্রবেশ করতে দেইনা। তবে অনেক সময় মাদকসেবীরা অন্য রাস্তা দিয়ে লুকিয়ে প্রবেশ করে মাদক সেবন করে। এব্যাপারে তেলিয়াপাড়া চা বাগানের ম্যানেজার এমদাদুল হক মিঠু’র নাম্বারে ফোন করেলে নাম্বার বন্ধ থাকায় বক্তব্য নেয়া যায়নি। ১৯৭১ সালে সারা দেশে যখন বিক্ষিপ্তভাবে প্রতিরোধ যুদ্ধ চলছিল ঠিক সে-ই মূহুর্তে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহনকারী বাঙালি সেনা কর্মকর্তারা একটি সুসংগঠিত সেনাবাহিনীর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। তারই ধারাবাহিকতায় ৪ঠা এপ্রিল সকাল দশটায় তেলিয়াপাড়া চা বাগানের বড় বাংলোতে মুক্তিযুদ্ধা সেনা কর্মকর্তাদের এক ঐতিহাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এটি ছিল মুক্তিযুদ্ধের প্রথম সামরিক সভা। এই সভায় মুক্তিযুদ্ধের রূপরেখা প্রনয়ণ করা হয়।
পরবর্তীতে ১০ এপ্রিল মুক্তিযুদ্ধের দ্বিতীয় সামরিক সভাটিও এখানে অনুষ্ঠিত হয়। হাজার হাজার মুক্তিযুদ্ধাকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে এখানে।  এখানে রয়েছে দুই তিন ও চার নম্বর সেক্টরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্বরণে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভ।
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর