শিরোনাম

মুক্তিযুদ্ধা নামে সুবিধাবাদী

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ৭, ২০২১ ৫:১৫:৪১ অপরাহ্ণ
মুক্তিযুদ্ধা নামে সুবিধাবাদী
মুক্তিযুদ্ধা নামে সুবিধাবাদী

নিজস্ব প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়া থানার ধরখার  ইউনিয়নের বনগজ গ্রামের শানু মিঞা(৭০) পিতা সত্তার

মিঞা।তিনি নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দাবি করেন এবং অত্র এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে পরিচিত।

কিন্তু তিনি কোনো মুক্তিযোদ্ধার না।১৯৭১ সালে শানু মিঞা  প্রাণের ভয়ের  ভারতে চলে যান এবং শরণাথী হিসাবে ভারতে অবস্থান করেন।১৯৭২ সালে দেশে এসে সুবিধাবাদীদের মতো বিভিন্ন দলের অংশগ্রহণ

করেন।নিজেকে একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দাবি করেন এবং গায়ে মুক্তিযোদ্ধা প্রতীক পরিধান করেন।

তিনি গ্রামে বিএনপি-জামায়াত ও  আওয়ামী লীগ যখন যে দল আসেন তাদের পাচাটুকা  করে বিশেষ সুবিধা

লাভ করেন।বনগজ গ্রামের সকল সরকারি কাজ তার মাধ্যমে হয়। তিনি বনগজ গ্রামের মিথ্যা  উন্নয়ন বলে

অনেক সরকারি টাকা নষ্ট করেন।যেমনঃ ব্রিজ নির্মাণ করেছেন অথচ রাস্তা নেই সরকারের লাখ টাকা নষ্ট।গ্রামের সকল পতিত জায়গা প্রভাবশালীদের হাতে তুলে দেন।সামান্য বৃষ্টিপাতে রাস্তার উপর উঠে ও

জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।এই নিয়ে অনেক বার সংবাদ হলেও শানু মিঞা গণমাধ্যম সামনে আসে নাই।তিনি বোয়া মুক্তিযুদ্ধা অথচ সরকার  লাখ লাখ টাকা আনে নিজের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন ।সোনারবাংলা 365.com

নিউজ পোর্টাল প্ৰতিনিধি সাথে আখাউড়া থানার এস আই শানু সম্পর্কে জানতে চাইলে  তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা না একথা তিনি বিশ্বাস করতে পারিনি।শানু  বনগজ গ্রামের প্রভাবশালীদের হাতিয়ার।বিভিন্ন

অপরাধমূলক কাজের জন্য প্রশাসন ও স্থানীয় প্রতিনিধি সাথে  যোগাযোগ মাধ্যম হিসাবে কাজ করেন।সোনার বাংলা 365.com শানু মিঞার  সাথে যোগাযোগ করলে উনি বলেন  আইনুদ্দিন (কমান্ডার

১৯৭১)জানে আমি একজন মুক্তিযুদ্ধা ছিলাম।আমার কাছে  আইনুদ্দিনের একটি চিঠি আছে এবং চিঠিটি হলো আমার  মুক্তিযোদ্ধার  সনদপত্র।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us