শিরোনাম

যমুনা নদীতে ৭ বছর ধরে দাড়িয়ে থাকা পরিত্যাক্ত সেতুটি বর্ষার পূর্বেই অপসারণের দাবি

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, এপ্রিল ১১, ২০২১ ৪:৩৮:২৩ অপরাহ্ণ
যমুনা নদীতে ৭ বছর ধরে দাড়িয়ে থাকা পরিত্যাক্ত সেতুটি বর্ষার পূর্বেই অপসারণের দাবি
যমুনা নদীতে ৭ বছর ধরে দাড়িয়ে থাকা পরিত্যাক্ত সেতুটি বর্ষার পূর্বেই অপসারণের দাবি
মির্জা হুমায়ুন,জেলা (সিরাজগঞ্জ)সংবাদদাতাঃ
সিরাজগঞ্জের চৌহালীর যমুনা নদীর মাঝে দাড়িয়ে থাকা মিটুয়ানীর সেতুটি মরনফাঁদে পরিনত হয়েছে। বর্ষার পূর্বেই অকেজো এবং পরিত্যাক্ত সেতুটি অপসারণের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসি।
প্রায় ৭ বছর আগে যমুনা নদীগর্ভে বিলীন হয় সেতুর সংযোগ সড়ক। এজন্য বর্ষায় নৌ চলাচলে মারাক্তক সমস্যার সৃষ্টি হয়ে ঘটে দুর্ঘটনা।
জানাযায়, যমুনা বিধ্বস্ত চৌহালী উপজেলার দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের যোগাযোগের জন্য প্রায় দেড় যুগ আগে বাঘুটিয়া ইউনিয়নের মিটুয়ানী বাজার সংলগ্ন ৭৫ মিটার দৈর্ঘ্যরে একটি গার্ডার সেতু নির্মান করা হয়। সড়ক ও জনপথ বিভাগের তত্বাবধানে নির্মিত সেতুটি ২০১৪ সালের বন্যায় ভাঙনের মুখে পড়ে।
তবে সেতুটি বিলীন না হলেও সংযোগ সড়ক ও মিটুয়ানী বাজার সহ বিশাল এলাকা নদী গর্ভে চলে যায়। বর্তমানে নদীর পূর্বপাড় হতে সেতুটি আধা কিলোমিটার ভিতরে দাড়িয়ে আছে। একই সাথে সাড়ে ৪ কিলোমিটার পাকা পাকা সড়ক নদীতে চলে যাওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের উপজেলা সদরে যাতায়াতে শুষ্ক মৌসুমে পায়ে হাটা আর বর্ষায় নৌ পথই একমাত্র ভরসা।
এলাকাবাসি জানান, বর্ষার সময় মিটুয়ানী থেকে সম্ভুদিয়া পর্যন্ত নৌ সার্ভিস চালু থাকে। এতে অন্তত ১২টি নৌকায় সাড়ে ৯ হাজার মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করে। নৌকায় চলাচলের সময় ব্যস্ততম নৌপথের মাঝে বিশাল আকৃতির অকেজো এ ব্রিজটি দাড়িয়ে থাকায় প্রতিনিয়তই ঝুকি নিয়ে চলাচল করতে হয় নৌকার চালক ও যাত্রীদের।
এলাকার মাঝি ও যাত্রিরা জানান, নদীর মাঝে সেতু থাকায় স্রােতের টানে অপরিচিত নৌকার মাঝি ও কুয়াশার মধ্যে যাত্রীবাহী নৌকা চলাচল করতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হয়। এজন্য বর্ষা মৌসুম আসার আগেই সেতুটি অপসারন না করা হলে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হবে।
৫ বছর আগে এই সেতুর সাথে ধাক্কা লেগে এক নৌকার ৯জন নিহত সহ বেশ কয়েকজন নিখোঁজ ছিল। এছাড়া ২বছর আগে খাষপুখুরিয়া এলাকার এক স্কুলছাত্র নদীতে গোসলে গিয়ে স্রােতের টানে ভেসে গিয়ে সেতুর ধাক্কায় নিহত হয়।
সেতুটি দ্রুত অপসারন করে নিরাপদ নৌ যোযোযোগ চালুর দাবি জানায় এলাকাবাসি। অব্যবহৃত গার্ডার সেতুটি এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। স্থানীয়দের দাবির প্রেক্ষিতে এ সেতুটি অপসরণে সিরাজগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিকট আবেদন করা হয়েছে বলে জানাযায়। দীর্ঘ দিন পেরিয়ে গেলেও সেতুটি অপসারনে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না।
এতে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কায় নৌকার যাত্রী ও চালকেরা। এজন্য বর্ষার আগেই সেতুটি অপসারনে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ দাবি করেছে এলাকাবাসি।
এ ব্যাপারে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আফসানা ইয়াসমিন জানান,
মিটুয়ানী গার্ডার সেতুটি অপসারণে ইতোমধ্যে সড়ক ও জনপথ বিভাগকে লিখিত ভাবে অবগত করা হয়েছে। ওই বিভাগের মাধ্যমে নিলাম পক্রিয়া সম্পন্ন হলে সেতুটি অপসারণে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us