শিরোনাম

রংপুরের মিঠাপুকুর থানা পুলিশ কর্তৃক অপহরণকারী আটক অপহৃত উদ্ধার

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, মার্চ ২, ২০২১ ৭:০৬:৩৯ অপরাহ্ণ
রংপুরের মিঠাপুকুর থানা পুলিশ কর্তৃক অপহরণকারী আটক অপহৃত উদ্ধার
রংপুরের মিঠাপুকুর থানা পুলিশ কর্তৃক অপহরণকারী আটক অপহৃত উদ্ধার

রুবেল ইসলাম, রংপুর

রংপুরে অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে অপহরণকারী আটক এবং অপহৃত ব্যক্তি কে উদ্ধার করেছে পুলিশ। অপহরণের ২৪ঘন্টার মধ্যে উক্ত ভিক্টিমকে (ব্যাবসায়ী) উদ্ধার, মহিলা অপহরনকারী সহ তিন জন অপহরণকারীকে গ্রেফতার করেছে মিঠাপুকুর থানা পুলিশ।

জানা গেছে রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানাধীন  ৯নং ময়েনপুর ইউনিয়নের কাশেমপুর পোড়া চাকলা গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিনের ছেলে মোঃ হাছান আলী (৪০), (ব্যাবসায়ী) গত (২৮ ফেব্রুয়ারী) সকাল ৯টায় ব্যবসায়িক কাজে শুকুরের হাট বাজারে আসে এবং ঐ সময় থেকে তার সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। ঐ দিন সকাল-১০:০০ তার নিজস্ব মোবাইল থেকে মুক্তিপণ দাবি করে। তার স্ত্রী ও আত্নীয়দের সাথে কথা বলে ১,৫০,০০০০/- টাকা বিকাশ করে পাঠাতে বলে। আর তা না হলে হাছান-কে ফেরত পাবেন না। অপহরণ কারিরা বিকাশে মুক্তিপণের কথা তার স্ত্রিকে জানালে এই নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। পরিবারের লোকজন উতকন্ঠায় পড়ে যায়। কোন উপায় না দেখে তারা মিঠাপুকুর থানা পুলিশ এর কাছে আসেন এবং একটি জিডি করে।

জিডির প্রেক্ষিতে রংপুর জেলা পুলিশের কর্নধার, বাংলাদেশ পুলিশ রংপুর জেলা পুলিশের সম্মানিত অভিভাবক, মানবিক পুলিশ সুপার, বিপ্লব কুমার সরকার বিপিএম (বার) পিপিএম। মহোদয়ের সার্বিক দিকনির্দেশনায় সহকারী পুলিশ সুপার “ডি-সার্কেল” কামরুজ্জামান পিপিএম -সেবা সহ মিঠাপুকুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ  আমিরুজ্জামান এর কর্মপরিকল্পনায় ও পরিদর্শক (তদন্ত) জাকির হোসেন এর নেতৃত্বে সঙ্গীয় অফিসার ফোর্সসহ কোন প্রকার কাল বিলম্ব না করে মিঠাপুকুর থানা পুলিশ নেমে পড়ে অভিযানে। অবশেষে গত (০১ মার্চ) সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় রংপুর জেলার পীরগাছা থানাধীন দেউতি এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে রংপুরের মিঠাপুকুর থানাধীন জায়গীর (দুর্গাপুর), গ্রামের মোঃ মকবুল হোসেনের মেয়ে মোছাঃ লাবনী বেগম (২৫), গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ থানাধীন চাচিয়া মীরগঞ্জ গ্রামের মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে মোঃ শামীম মিয়া (৩০), এবং একই গ্রামের মৃত আজগার আলীর ছেলে মোঃ শাহীন মিয়া (৩৫),কে গ্রেফতার করে। এবং অপহরণকারীদের কবল থেকে ভিকটিম হাছান কে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে গ্রেফতারকৃত সদস্যরা একটি সংঘবদ্ধ চক্র। তারা দীর্ঘদিন যাবত উক্ত অপরাধ সংঘটিত করে আসতেছে। তারা প্রথমে তাদের চক্রের সদস্যদের দিয়ে ফেসবুক ও মোবাইলে কথা বলে বন্ধুত্ত্ব সম্পর্ক গড়ে তুলে এবং ১০/১৫ দিন পর দেখা করার কথা বলে ডেকে আনে। এরপর নির্জন কোন জায়গায় নিয়ে গিয়ে উক্ত চক্রের সদস্যরা সবকিছু ছিনিয়ে নেয় এবং পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করতে থাকে। টাকা আদায় না হওয়া পযন্ত চলতে থাকে অমানবিক নির্যাতন। আটককৃত আসামীদের বিরুদ্ধে মিঠাপুকুর থানায় মামলা নং-০১, ধারা- ৩৬৫/৩২৩/৩৮৫/ ৩৮৬/৩৪ পেনাল কোড রুজু হয়েছে। আসামীদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us