শিরোনাম

রোহিঙ্গাদের আশ্রয় শিবিরগুলো পরিণত হয়েছে বিষফোঁড়ায়

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, জানুয়ারি ১৪, ২০২৩ ১০:৪৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ

কক্সবাজারের ৩২ রোহিঙ্গা শিবিরে গত পাঁচ বছরে ১৩৫ হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে। মামলা হয়েছে ৫ হাজার ২২৯টি। হুমকিতে রয়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপত্তা। বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই শরণার্থী শিবিরে সংঘাত, ডাকাতি, ধর্ষণ, অপহরণ, খুন যেন স্বাভাবিক চিত্র। রোহিঙ্গারা নিজেরা সংঘাতে জড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য এবং স্থানীয়দের ওপরও হামলা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মানবিকতার অনন্য নজির স্থাপন করে বাংলাদেশে স্থান দেওয়া রোহিঙ্গাদের আশ্রয় শিবিরগুলো পরিণত হয়েছে বিষফোঁড়ায়।

কক্সবাজারের টেকনাফের এপিবিএন-১৪ অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি সৈয়দ হারুন উর রশিদ বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অপরাধ নিয়ন্ত্রণে নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ক্যাম্পের চিহ্নিত অপরাধীদের গ্রেফতারের পাশাপাশি চেকপোস্ট ও টহল জোরদার করা হয়েছে। অপরাধ সংঘটনের সঙ্গে সঙ্গে সম্পৃক্তদের গ্রেফতারের আওতায় আনা হয়।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘পারিবারিক সহিংসতা ছাড়াও মাদক, অস্ত্র, ছিনতাই, অপহরণ ও খুনের মতো ঘটনা বেশি হয় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। অপরাধ করার পর কেউ কেউ জিরো পয়েন্টে থাকা ক্যাম্পে অবস্থান নেয়। এতে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া কঠিন হয়ে পড়ে। তবে অপরাধ নিয়ন্ত্রণে যৌথভাবে কাজ করছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো।’

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায় আশ্রয় নেন রোহিঙ্গারা। কিন্তু নতুন করে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা কয়েক মাসের মধ্যেই নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়েন। সৃষ্টি হয় ছোটবড় সন্ত্রাসী গ্রুপ। সূত্রমতে, বর্তমানে ক্যাম্পে সক্রিয় রয়েছে ছোটবড় শতাধিক সন্ত্রাসী গ্রুপ। এসব গ্রুপের একেকটিতে সদস্য রয়েছে ৫০ থেকে ৫০০ পর্যন্ত। এ গ্রুপগুলো চাঁদাবাজি, ছিনতাই, ডাকাতি, অস্ত্র-মাদক ব্যবসা, মানব পাচার, অপহরণসহ ১৪ ধরনের অপরাধ করছে। এ ছাড়া ক্যাম্পে সক্রিয় রয়েছে আরাকান রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মি (আরসা), রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশন (আরএসও), ইসলামী মাহাজ, জমিওয়তুল মুজাহিদীনসহ আরও কয়েকটি সংগঠন। এগুলোর বিরুদ্ধে ক্যাম্পে আধিপত্য নিয়ন্ত্রণে টার্গেট কিলিং, ফান্ড সংগ্রহে চাঁদাবাজি, মাদক ব্যবসা, অপহরণের অভিযোগ রয়েছে। জানা গেছে, আশ্রয় শিবিরগুলোর কারণে স্থানীয় বাসিন্দারাও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। তাদের ওপর হামলা, বসতবাড়িতে ঢুকে মালামাল লুটের ঘটনা প্রায়ই ঘটছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

কক্সবাজার জেলার পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম বলেন, ‘বিগত যে কোনো সময়ের চেয়ে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে মামলার হার বেড়েছে। কক্সবাজারের বিভিন্ন আদালতে ২ হাজারের মতো মামলা চলমান। এর বেশির ভাগই মাদক, হত্যাচেষ্টা, হত্যা, চাঁদাবাজি, চোরাচালান ও অপহরণের মতো ঘটনার। চলমান মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির প্রক্রিয়া চলছে।’
কক্সবাজারের আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর তথ্যমতে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে ২০১৭ সালে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের একটা অংশ ২০১৮ সালের শুরু থেকে অপরাধপ্রবণ হয়ে ওঠে। এর পর থেকে গত পাঁচ বছরের অধিক সময়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে একে একে ১৩৫টির মতো খুনের ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া মাদক, অস্ত্র, ছিনতাই, ডাকাতি, ধর্ষণ, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সংঘাত, অপহরণ, হত্যাচেষ্টা, চাঁদাবাজি, মানব পাচার, সোনা চোরাচালানসহ ১৪ ধরনের অপরাধের অভিযোগে ৫ হাজার ২২৯টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় আসামি কয়েক হাজার রোহিঙ্গা। সবশেষ সাত মাসে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খুন হন ৩০ জন। খুনের শিকার হওয়া রোহিঙ্গাদের বেশির ভাগই বিভিন্ন ব্লকের মাঝি ও জিম্মাদার। এ খুনগুলোর জন্য মিয়ানমারভিত্তিক সংগঠন আরসাকে অভিযুক্ত করা হয়। এ ছাড়া ২০১৮ সালে দেশব্যাপী চালানো মাদকবিরোধী অভিযানে কক্সবাজারে বিভিন্ন বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন ২৭৯ জন। এর মধ্যে রোহিঙ্গা ১০৯ জন।

টেকনাফের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘পরিকল্পিত উখিয়া চাই’-এর সভাপতি নূর মোহাম্মদ সিকদার বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের কারণে স্থানীয়রা নিরাপত্তা হুমকিতে রয়েছেন। মাদক-অস্ত্র ব্যবসা, মানব পাচার, ডাকাতি, ছিনতাইসহ সব ধরনের অপরাধে তারা জড়িত। এ ছাড়া পান থেকে চুন খসলেই স্থানীয়দের ওপর হামলা চালায়। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেও কোনো কাজ হয় না। অপরাধ করার পরও পার পেয়ে যাওয়ার কারণে দিন দিন তারা আগ্রাসি হয়ে উঠছে। তাদের অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা না গেলে টেকনাফে স্থানীয়দের টিকে থাকাই দায় হবে।’ রোহিঙ্গাবিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্সের তথ্যমতে, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর বাংলাদেশে প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গার উপস্থিতি ছিল। কিন্তু ক্যাম্পগুলোয় প্রতি বছর ৩০ হাজার রোহিঙ্গা শিশু জন্মগ্রহণ করছে। সে হিসেবে পাঁচ বছরে ক্যাম্পে রোহিঙ্গা শিশুর জন্ম হয়েছে ১ লাখ ৫০ হাজারের মতো। এ নিয়ে মোট রোহিঙ্গার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে সাড়ে ১২ লাখের বেশি। জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার ওয়েবসাইটের তথ্যানুযায়ী, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অভিযানের মুখে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্টের পর ৭ লাখ ৭৩ হাজার ৯৭২ জন রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন। ২০২২ সাল পর্যন্ত নিবন্ধিত রোহিঙ্গার সংখ্যা সাড়ে ৯ লাখ। এর আগে ২০১৬ সালের অক্টোবরে রাখাইন প্রদেশ থেকে পালিয়ে আসেন কমপক্ষে ৮৭ হাজার রোহিঙ্গা।

আরও পড়ুনঃ

মুন্সীগঞ্জ শহরের মানিকপুরে অগ্নিকাণ্ডে একটি বসতঘর পুড়ে ছাই
ব্রাজিল এবার আটলান্টিক মহাসাগরে ডুবিয়ে দিলো নিজেদেরই একটি বিমানবাহী রণতরী
আইএমএফ-এর শর্ত ‘কল্পনার বাইরে’ বলে আখ্যা দিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ
ইউক্রেনকে এবার নতুন ধরনের জিএলএসডিবি বোমা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র
যুক্তরাষ্ট্র কেনো চীনের বেলুনটিকে ভূপাতিত করতে পারছেন না
সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক পরমাণু শক্তি’র মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের উস্কানিমূলক সামরিক তৎপরতা জবাব দেবে, উত্তর ক...
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরমাণু কেন্দ্রগুলোর উপর নজরদারির জন্য গুপ্তচর বেলুন ব্যবহার করছে চীন
আঙ্কারা যদি দু’টি ইউরোপীয় দেশের ন্যাটো জোটে অন্তর্ভুক্তির বিরোধিতা করে তাহলে তুরস্কের এফ-১৬ জঙ্গিবিম...
Spread the love
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us