শিরোনাম

সুখের গোপন রহস্য দুটো

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৪, ২০২২ ১২:২০:৫৪ অপরাহ্ণ

দুই শ্রেণির মানুষ এই দুনিয়াতে সুখী হয়ে থাকে। (১) আল্লাহর সকল সিদ্ধান্তে (তাকদিরে) সন্তুষ্ট ব্যক্তি (২) সর্বাবস্থায় আল্লাহর উপর ভরসাকারী ব্যক্তি।
.
আল্লাহর উপর ভরসা করা মানে এই নয় যে, কোন কাজ না করে সবকিছু আল্লাহর উপর ছেড়ে দেওয়া। বরং তাওয়াক্কুল (আল্লাহর উপর ভরসা) হলো উপকরণ সংগ্রহ করে সাধ্যানুযায়ী কাজ করে যাওয়া এবং সফলতার জন্য দু’আ করা। ব্যস, বান্দার কাজ এতটুকুই। বাকি কাজ আল্লাহই করে দেবেন এই আশা রাখা।
.
মূলকথা: বিশ্বাস রাখতে হবে, এই উপায়-উপকরণ বা কাজের মাধ্যমে কোনো সফলতা আসবে না, বরং আল্লাহই সফলতা দেওয়ার মালিক। আল্লাহ্ চাইলে কোন উপকরণ ছাড়াও সাহায্য করতে পারেন আবার উপকরণ দিয়েও সাহায্য করতে পারেন। যেমন: ইব্রাহিম (আ.)-কে তিনি কোন উপকরণ ছাড়াই আগুন থেকে মুক্তি দিয়েছেন আবার মুসা (আ.)-কে (তাঁর নির্দেশে) সামান্য লাঠির আঘাতে সমুদ্র/নদীতে রাস্তা তৈরির মাধ্যমে সাহায্য করেছেন। আল্লাহ্ দুটোই করতে সক্ষম। তবে, সুন্নাহ্ বা ইসলামের নিয়ম হলো, সাধ্যানুযায়ী উপকরণ সংগ্রহ করা, অতপর তাঁর উপর নির্ভর করা। এটিই হলো প্রকৃত তাওয়াক্কুল।
.
ইবনুল কাইয়িম (রাহ.) বলেন, “তাওয়াক্কুলের রহস্য ও তাৎপর্য হলো, বান্দার অন্তর এক আল্লাহর উপর নির্ভরশীল হওয়া, জাগতিক উপকরণের প্রতি অন্তরের মোহশূন্য থাকা, সেগুলোর প্রতি আকৃষ্ট না হওয়া। (এই বিশ্বাস রাখা যে,) এসব উপায়-উপকরণের সরাসরি কোন ক্ষতি কিংবা উপকার করার ক্ষমতা নেই।” [আল ফাওয়াইদ: ৮৭]
.
মারইয়াম (আ.) ছিলেন অন্তঃসত্ত্বা। আমরা ভাল করেই জানি, একজন অন্তঃসত্ত্বা শারীরিক এবং মানসিকভাবে কত দুর্বল থাকেন। আবার আমরা এটাও জানি, খেজুর গাছের ভিত্তি পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম শক্ত ও মজবুত ভিত্তি। যত বড় তুফানই আসুক খেজুর গাছকে সমূলে উপড়াতে পারে না। তো, মারইয়াম (আ.) ছিলেন আল্লাহর খুবই প্রিয় ব্যক্তি। তিনি মাসজিদে থাকতেন। তাঁর জন্য জান্নাতের খাবার পাঠানো হতো। এগুলো সব কুরআনেই আছে। তাঁকে নির্দেশ দেওয়া হলো, “আর তুমি তোমার দিকে খেজুর গাছের কাণ্ড ধরে নাড়া দাও। এটি তোমার উপর পাকা খেজুর নিক্ষেপ করবে।” [সূরা মারইয়াম: ২৫]
.
এই ঘটনা থেকে আমাদের অন্যতম শিক্ষা হলো, আল্লাহ্ তা’আলা ইচ্ছা করলে এমনিতেই খেজুর নিক্ষেপ করতে পারতেন। তবুও তিনি মারইয়ামকে একটি নির্দিষ্ট পদ্ধতির মধ্য দিয়ে রিযিক পৌঁছিয়েছেন। অথচ তিনি ছিলেন তখন শারীরিক ও মানসিকভাবে দুর্বল। উপকরণ খুব তুচ্ছ হতে পারে, তবুও সেটি নিয়েই তাওয়াক্কুল করতে হবে। যেমনটি করেছিলেন মূসা (আ.), মারইয়াম (আ.) এবং অন্যরা।
.
আল্লাহ্ বলেন, “আর যে আল্লাহর উপর ভরসা করে, তিনি তার জন্য যথেষ্ট হয়ে যান।” [সূরা ত্বালাক্ব: ০৩]
.
✍️লেখা: Tasbeeh

Spread the love
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us