শিরোনাম

হুইপ সামশু তাঁর ছেলেকে খেলোয়াড় সাজিয়ে নিয়ে যান লন্ডন!

সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, এপ্রিল ২১, ২০২১ ২:০৮:১১ পূর্বাহ্ণ
হুইপ সামশু তাঁর ছেলেকে খেলোয়াড় সাজিয়ে নিয়ে যান লন্ডন!
হুইপ সামশু তাঁর ছেলেকে খেলোয়াড় সাজিয়ে নিয়ে যান লন্ডন!

হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর মানবপাচার নিয়ে চাঞ্চল্যকর প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল জাতীয় দৈনিক প্রথম আলো। ‘সামশু তাঁর ছেলেকে খেলোয়াড় সাজিয়ে নিয়ে গেছেন’ শিরোনামে ২০০২ সালের ২২ আগস্ট প্রকাশিত হয় এই প্রতিবেদন। ফুটবলকে ব্যবহার করে হুইপ সামশুল হকের গুরুতর অপরাধে জড়িয়ে থাকার তথ্য উঠে আসে প্রতিবেদনে। প্রথম আলোর সেই প্রতিবেদনে বলা হয়, চট্টগ্রাম আবাহনীর সাধারণ সম্পাদক সামশুল হক চৌধুরী তাঁর ছেলে নাজমুল হক চৌধুরীকে (শারুন) খেলোয়াড় সাজিয়ে লন্ডন নিয়ে গিয়েছিলেন। পাশাপাশি হুইপ সামশুল হকের বিরুদ্ধে অন্তত ১১ জনকে আদম হিসেবে পাচার করার প্রমাণ পাওয়ার কথা বলা হয়েছে প্রতিবেদনে।

প্রথম আলোর প্রতিবেদনে বলা হয়, চট্টগ্রাম আবাহনী লিমিটেডের গোপনে লন্ডন যাওয়া দলের তালিকায় ক্লাবের সদস্যসচিব সামশুল হক চৌধুরীর ছেলেও রয়েছেন। ছেলেকে বিদেশে নেওয়ার ব্যাপারে এই কর্মকর্তা জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন। না হয় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব আবদুর রাজ্জাক হাওলাদার স্বাক্ষরিত সরকারি অনুমোদনপত্রে (জিও) নাজমুল হক চৌধুরীর নাম কেন ‘খেলোয়াড়’ হিসেবে দেখানো হলো? আদমপাচার কেলেঙ্কারি উদঘাটনের জন্য পাঁচ সদস্যের চট্টগ্রাম আবাহনীর তদন্তদলটির অনুসন্ধান এখনো অব্যাহত আছে। কমিটির সদস্যরা গতকাল রাতে (২০০২ সালের ২১ আগস্ট) ক্লাবের সভাপতি ও আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য রফিকুল আনোয়ারের সঙ্গে দেখা করে আদমপাচারের অন্যতম নায়ক সামশুল হক চৌধুরীকে সদস্যসচিব পদ থেকে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দেওয়ার অনুরোধ জানান।

লন্ডনগামী ৩৮ জনের দলে অন্তত ১১ জনকে আদম হিসেবে পাচার করার প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাঁরা হলেন ঢাকার মাহাবুবুল আলম, গিয়াস উদ্দিন মিয়াজি, আনিসুর রহমান চৌধুরী, সাহাবুদ্দিন, চট্টগ্রামের এম এন শাকিল, আরিফ মাহমুদ, নূরুল আফসার মিন্টু, চাঁদপুরের শফিকুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জের বদরুল ইসলাম দৌজা প্রমুখ। তদন্ত কমিটি তাঁদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে রেখেছে। প্রথম আলোর প্রতিবেদনে বলা হয়, আদমপাচারের অভিযোগ ছাড়াও ক্লাবের বিপুল অঙ্কের অর্থ কেলেঙ্কারির খবরও ফাঁস হয়েছে। আবাহনীর সদস্যসচিব সামশুল হক চৌধুরীর স্বাক্ষরে ব্যাংকে জমা এক কোটি টাকার মধ্যে মাত্র ৪০ হাজার টাকা জমা আছে। লিমিটেড কম্পানির নিয়ম অনুসারে একক কোনো ব্যক্তি ব্যাংকে লেনদেন করতে পারেন না। এ ক্ষেত্রে প্রশ্ন উঠেছে, চট্টগ্রাম আবাহনীকে আনুষ্ঠানিকভাবে লিমিটেড কম্পানি করা হয়েছে, নাকি কতিপয় কর্মকর্তার মিথ্যা প্রচারণা? উল্লেখ করা হয়েছে প্রথম আলোর প্রতিবেদনে।
সূত্রঃ প্রথম আলো ও কালের কণ্ঠ

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Facebook Comments

সাম্প্রতিক খবর

Contact Us