শিরোনাম

Blog

শাহজাদপুরে গলায় ফাঁস নিয়ে ২ জনের আত্মহত্যার

মির্জা হুমায়ুন,জেলা (সিরাজগঞ্জ)সংবাদদাতাঃ
সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার আলাদা দু’টি গ্রামে গলায় ফাঁসি নিয়ে দুই জনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে।

থানা পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়,শনিবার (২৬ জুন) দুপুরে উপজেলার পোরজনা ইউনিয়নের বাচড়া গ্রামের মৃত হোসেন আলী মোল্লার ছেলে আব্দুল মতিন মোল্লা (৬০) নিজ ঘরে প্রবেশ করে দরজা বন্ধ করে দেন।

কিছুক্ষণ পর তার নাতী হৃদয় হাসান তার নানাকে ডাকাডাকি করলেও তার কোন প্রতিউত্তর না পাওয়ার কারণে বাড়ির লোকজন ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে, তারা দেখতে পারে আব্দুল মতিন মোল্লার দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। তবে প্রতিবেশীরা অনেকেই জানান, নিহত আব্দুল মতিন মানসিক রুগি।

অপরদিকে একই দিন শনিবার বিকাল ৪টায় উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের রেশমবাড়ি গ্রামের ইমান আলী মোল্লার ছেলে সুজন মোল্লা (২২) নিজের ঘরের গলায় রশি পেচিয়ে আত্মহত্যা করে।

আত্মহত্যার খবর পেয়ে শাহজাদপর থানা পুলিশের দুইটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিন হন।দুইজনের নিহতের ঘটনায় শাহজাদপুর থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

তিন মাস ধরে ৪০ পরিবার অবরুদ্ধ

শত বছরের পুরনো একটি গ্রামীণ রাস্তায় জোরপূর্বক স্থাপনা ও দেওয়াল নির্মাণ করেছে এক প্রভাবশালী। এতে ৪০টি পরিবারের দুই শতাধিক মানুষ তিন মাস ধরে অবরুদ্ধ হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার বুরুদিয়া ইউনিয়নের মধ্য পুটিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গ্রামের প্রধান রাস্তা থেকে চলাচলের জন্য বাড়ির পাশ দিয়ে সরু একটি মাটির রাস্তা। রাস্তার মাঝখানে একটি একচালা ছোট্ট টিনশেড ঘর নির্মাণ করে রাস্তাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এর সামনে কিছুদূর পর আড়াআড়িভাবে ইট দিয়ে আরো একটি দেওয়াল নির্মাণ করা হয়েছে। এতে রাস্তাটিই বন্ধ হয়ে গেছে।

ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত তিন মাস আগে রাস্তার মালিকানা দাবি করে প্রতিবেশী মনসুর আলীর ছেলে মুনজিল মিয়া রাস্তাটি বন্ধ করে দেন।

অবরুদ্ধ একটি পরিবারের সদস্য আবদুল মান্নান বলেন, বাপ-দাদার আমল থেকেই শতাধিক বছর ধরে এই রাস্তা দিয়ে সবাই চলাচল করে আসছি। হঠাৎ করে মুনজিল মিয়া নিজের জায়গা দাবি করে রাস্তার মধ্যে ঘর ও ইট দিয়ে দেওয়াল নির্মাণ করেছেন।

অভিযুক্ত মুনজিল মিয়া বলেন, জায়গাটি আমার বাড়ির উঠান। এ জায়গা দিয়ে তারা অবাধে চলাফেরা করলেও এখন আমি সীমানা প্রাচীর দিয়ে জায়গাটি আমার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছি। এর পরিবর্তে আমার বাড়ির পশ্চিম পাশ দিয়ে চলাচলের রাস্তার জন্য গাছ কেটে জায়গা করে দিয়েছি। কিন্তু তারা মানছে না।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত) এ কে এম লুৎফর রহমান বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে সরেজমিনে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মো.শাহজাহান বলেন, বিষয়টি সমাধানের জন্য চেয়ারম্যানকে নিয়ে তিনটি দরবার করেছি। কিন্তু মনজিল মিয়া কোনো দরবারই মানছেন না।

কলাপাড়ায় তুলা গাছ থেকে পড়ে এক বৃদ্ধের মৃত্যু ॥

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি   ঃ  কলাপাড়ায় গাছ থেকে পড়ে নূর গাজী (৭০)
নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে ধুলাস্বার
ইউনিয়নের বেতকাটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মহিপুর থানায় একটি ইউ,ডি
মামলা হয়েছে।

ধুলাসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল জলিল মাষ্টার জানান, নূর গাজী
নিজের বাড়ীর তুলা গাছে উঠে তুলা সংগ্রহ করছিল । এসময় একটি ডাল ভেঙ্গে
অন্তত: ২০ ফুট উপর থেকে নিচে পড়ে যায়। এতে সে মাথায় গুরুতর আঘাত পায়,
তাৎক্ষনিক স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্্ের নিয়ে
আসার পথে তার মৃত্যু হয়।

নিহত নূর গাজীর ছেলে ছবির হোসেন গাজী এ প্রতিবেদককে জানান, তুলা গাছে উঠে
তার পিতা আরো অনেকবারই তুলা সংগ্রহ করেছেন, ঘটনার সময় অপেক্ষাকৃত ছোট
ডালে পাড়া দিয়ে তুলা সংগ্রহ করতে গিয়ে সে এ দূর্ঘটনার শিকার হয় ।

মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার মো: আবুল খায়ের
গনমাধ্যমকে বলেন, বৃদ্ধ মৃত্যুর ঘটনায় থানায় ইউ,ডি মামলা হয়েছে ।

বানারীপাড়ায় হাসপাতাল থেকে মৃত ঘোষিত শিশু দাফনের প্রস্তুতিকালে নড়ে ওঠায় বিক্ষোভ

রাহাদ সুমন,বিশেষ প্রতিনিধি॥ বরিশালের বানারীপাড়ায় পুকুরের পানিতে পরে যাওয়া শিশুকে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করার পরে দাফনের প্রস্তুতিকালে নড়ে ওঠায় পুনরায় হাসপাতালে এনে বিক্ষোভ করেছে স্বজনেরা।
জানা গেছে,উপজেলার সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের  আহম্মদাবাদ বেতাল গ্রামের রাজ মিস্ত্রি মো. সুমনের দুই বছরের শিশু সাইমুন ২০ মে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বাড়ির উঠানের পাশে পুকুর পাড়ে খেলার ছলে পানিতে পরে যায়। ওই সময় শিশুটির মা উঠানে ধান সিদ্ধ করছিলেন। তাৎক্ষনিক শিশুটিকে অচেতন অবস্থায় পুকুর থেকে তুলে বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক সুব্রতদেব পাল সকাল ১০টা ৫ মিনিটে মৃত ঘোষণা করেন। স্বজন ও এলাকাবাসী জানান, পরে বাড়িতে নিয়ে দাফন করার জন্য প্রস্তুতি নিলে হঠাৎ শিশুটি  নড়েচড়ে ওঠে এবং হিচকে দিয়ে তার মুখ থেকে পানি গড়িয়ে পরে। যা তার মা- বাবা সহ স্থানীয়রা  দেখতে পান। ফলে পুনরায় শিশুটিকে নিয়ে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তারা বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ছুটে আসেন এবং চিকিৎসকের বিরুদ্ধে চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগে বিক্ষোভ প্রদর্শণ করেন। এসময় বিক্ষুদ্ধ জনতা লাঠিসোটা নিয়ে বিক্ষোভ করে চিকিৎসকের বিচার দাবি করেন। খবর পেয়ে বানারীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হেলাল উদ্দিন ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের শান্ত করেন।

এদিকে দ্বিতীয় দফা চেষ্টার পরেও শিশুটিকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। এ বিষয়ে বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী বিভাগে কর্মরত ডা. সুব্রতদেব পাল দাবি করেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। তারপরেও অক্সিজেন দেওয়া ও ইসিজি করাসহ সবধরণের চেষ্টা করা হয়েছে। দ্বিতীয়বার নিয়ে আসার পরেও পুনরায় অক্সিজেন দেওয়া ও ইসিজি করাসহ সর্বাত্মক চেষ্টা করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বানারীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. হেলাল উদ্দিন বলেন,হাসপাতালে বিক্ষোভের কথা জেনে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে তাৎক্ষনিক গিয়ে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়ে শিশুটির স্বজনসহ বিক্ষুদ্ধ জনতাকে শান্ত করা হয়।

জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের পৃথক অভিযানে ১টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৪ কেজি গাঁজাসহ আটক-২

আবু রায়হান, জয়পুরহাটঃ

জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের চৌকস অভিযানিক দল পৃথক পৃথক অভিযান পরিচালনা করে ১টি ওয়ান শুটারগান ও ৪ কেজি গাঁজাসহ ২ জনকে আটক করেছে।

শুক্রবার বিকেলে জয়পুরহাট র‍্যাব ক্যাম্পের অধিনায়ক সহকারী  পুলিশ সুপার মাসুদ রানা প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

শুক্রবার (২০ মে) ভোররাতে জয়পুরহাট সদর উপজেলার মাধাইনগর বাজার এলাকা থেকে মাধাইনগর  গ্রামের আব্দুল ওহাবের ছেলে আব্দুল্লাহ (২০) নামে এক যুবককে ১টি ওয়ান শুটারগানসহ
আটক করা হয়।

আপর দিকে শুক্রবার (২০ মে) দুপুরে র‍্যাবের অপর এক অভিযানে নওগাঁ জেলার পার নওগাঁ স্টেডিয়াম গেট এলাকা থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ কুমিল্লা সদর উপজেলার খিলপাড়া এলাকার মৃত দৌলত খানের ছেলে রাকিব হোসেন দিপু (২০) নামে এক যুবককে আটক করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বিকালে শুটারগানসহ আটক আব্দুল্লাহকে জয়পুরহাট সদর থনায় ও গাঁজাসহ দিপুকে নওগাঁ সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

রূপগঞ্জে আম পারাকে কেন্দ্র করে দু‘পক্ষের সংঘর্ষে নিহত-১ আহত-৪
লিখন রাজ,রূপগঞ্জ(নারায়ণগঞ্জ)প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে গাছের আম পারাকে কেন্দ্র করে দু‘পক্ষের সংঘর্ষে জয়দেব(৫০) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে।
এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও ৪জন। শুক্রবার (২০ মে) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের বিংরাবো এলাকায় ঘটে এ ঘটনা। নিহত জয়দেব হলেন, উপজেলা সদর ইউনিয়নের বিংরাবো এলাকার মৃত সুধনের ছেলে। আহতরা হলেন, নিহত জয়দেবের স্ত্রী মনজু (৪০) ও তার তিন মেয়ে তৃষ্ণা (২৬), টুম্পা (২৪), সানজিদা (২২)।
নিহতের পরিবারসূত্রে জানা যায়, উপজেলার সদর ইউনিয়নের বিংরাবো এলাকার জয়দেবের পৈত্রিক বাড়ি-ঘর না থাকায় একই এলাকার সুনীল চন্দ্র বিশ^াসের বাড়িতে তিনি পরিবার নিয়ে বসবাস  করতেন এবং তার বাড়ি-ঘর ও গাছপালা দেখাশুনাসহ বাড়ির পাশের জমিতে ফসল ফলিয়ে বাজারে বিক্রি করে সংসার চালাতেন। শুক্রবার (২০ মে) বিকালে বাড়ির আম গাছে উঠে একই এলাকার মাহাবুবুর রহমানের ছেলে সিয়াম ও জুনায়েত আম পাড়ছিল। জয়দেব তাদেরকে আম পারতে নিষেধ করায় সিয়ামের সাথে জয়দেবের বাকবিতন্ড হলে সিয়ামের বাবা মৃত নুরা মিয়ার ছেলে মাহাবুবুর রহমান (৪৫) ও মা রুকি (৩৫), ছোট ভাই জুনায়েত, চাচাতো ভাই মুরাদ ছুটে এসে জয়দেব ও তার পরিবারের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে জয়দেব গুরুতর আহত হয়ে ঘটনাস্থলে মারা যান।  এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফএম সায়েদের কাছে জানতে চাইলে তিনি খুনের ঘটনাটি স¦ীকার করে বলেন, বিংরাবো এলাকায় গাছের আম পারাকে কেন্দ্র করে একটি খুনের ঘটনা ঘটেছে। লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার  প্রস্তুতি চলছে।
জয়পুরহাটে আব্দুল গাফ্ফার চৌধরীর মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব ও বাংলা টিভির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত
আবু রায়হান, জয়পুরহাটঃ
বাংলা টিভির প্রধান উপদেষ্ঠা সাংবাদিক ও কলামিষ্ট আব্দুল গাফ্ফার চৌধরী মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব ও ১ মিনিটের নিরবতার পর জয়পুরহাটে বাংলা টিভির ৬ষ্ঠ বছরে পদাপর্ণ উপলক্ষে কেক কাটা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার রাত ৮ টায় শহরের চিত্রা রোড়ে ফ্রেন্ডস গার্ডেন রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলা টিভি জয়পুরহাট জেলা প্রতিনিধি রেজাউল করিম রেজার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আনোয়ার পারভেজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফারজানা হোসেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম সোলায়মান আলী, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক মাসুদ রেজা, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবিনা চৌধুরী, জয়পুরহাট টেলিভিশন রিপোর্টার ইউনিটির সভাপতি আব্দুল আলীম, সাধারণ সম্পাদক রাশেদুজ্জামান রাশেদ, জয়পুরহাট সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি শেখর মজুমদার, সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেন, গোলাম মোস্তফা ।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জয়পুরহাট প্রেস ক্লাবের কোষাধক্ষ্য মাশরেকুল আলম, মডেল প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বিপুল কুমার সরকার, জয়পুরহাট জেলা প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোমেন মুনি, সাংবাদিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি সোহেল আহমেদ লিও, বাংলাদেশ তৃণমুল সাংবাদিক কল্যাণ সোসাইটির সভাপতি মাসুদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ।
এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, সাংবাদিক সুজন মন্ডল, আল মামুন, সেলিম রেজা, নেওয়াজ মোরশেদ নোমান, মাহফুজুর রহমান, মিলন রায়হান, মেহেদি হাসান রাজু , মাহফুজুর রহমান রিভু, খোকন হোসেন জাকির সহ জেলার ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সংবাদিক ও সুধিজনেরা।
এ সময় আব্দুল গাফ্ফার চৌধরীর মৃত্যুতে গভীর শোক,  সমবেদনা জানিয়ে তার বর্ণাঢ্য জীবনের নানা দিক নিয়ে আলোচনা করা করেন বক্তারা।
মহিপুরে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত ॥

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি  ঃ  মহিপুরে সাংবাদিক ও প্রভাষক সাইদুর
রহমানের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করায় মানববন্ধন করা হয়েছে। বাংলাদেশ
মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) মহিপুর থানা শাখার উদ্যোগে শুক্রবার
দুপুরের দিকে মহিপুর শেখ রাসেল সেতুর উপর এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা
হয়।

বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) মহিপুর থানা শাখার যুগ্ম
সাধারণ সম্পাদক মো: বশির উল্লাহর সঞ্চালনায় এ মানববন্ধনে কুয়াকাটা,
মহিপুর, হাজীপুর ও কলাপাড়ার বিভিন্ন মিডিয়ার সংবাদ কর্মীসহ কয়েকটি
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা
মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন শেষে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মফস্বল
সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ও কুয়াকাটা
প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো: মিজানুর রহমান, বিএমএসএফ মহিপুর
থানা শাখার সভাপতি ও কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি এ এম মিজানুর
রহমান বুলেট, মহিপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি মো: মনিরুল ইসলাম, প্রতিষ্ঠাতা
সাবেক সভাপতি মো: হাবিবুল্লাহ খান রাব্বী, সাধারণ সম্পাদক মো: নাসির
উদ্দিন, অনলাইন পোর্টাল সময়ে খবরের প্রকাশক ও সম্পাদক আরিফ বিল্লাহ নাছিম
প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, অবিলম্বে সাংবাদিক সাইদুর রহমান ও তার পরিবারের
বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে অন্যথায়
পরবর্তীতে আরও কঠোর আন্দোলন ঘোষণা করা হবে। বক্তারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধা
জানিয়ে আরো বলেন, দায়েরকৃত মিথ্যা মামলার সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের
আইনের আওতায় এনে কার্যকরী ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপশি মিথ্যা মামলা
প্রত্যাহারের জোর দাবী জানান হয়।

পরশুরামের শাহীন চৌধুরী হত্যা মামলায় সাবেক ইউপি মেম্বার যুবলীগ নেতা জাহিদ কারাগারে

পেয়ার আহাম্মদ চৌধুরী, ফেনী জেলা প্রতিনিধি:
ফেনীর পরশুরাম বাজারে দোকান কর্মচারী শাহীন চৌধুরী হত্যা মামলার অন্যতম এজাহারনামীয় আসামি জাহিদ হোসেনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

সোমবার ২৫ এপ্রিল আদালতের বিচারক তাঁর জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

জাহিদ হোসেন উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের (৮ নং ওয়ার্ড) মেলাঘর গ্রামের মৃত আবদুল কুদ্দুসের ছেলে। তিনি শাহীন চৌধুরী হত্যা মামলার ৪ নম্বর এজাহারনামীয় আসামি।

এর আগে জাহিদ হোসেন বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ থেকে ছয় সপ্তাহের আগাম জামিন পান। সোমবার জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ায় উচ্চ আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক জাহিদ হোসেন ফেনীর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করলে আদালতের বিচারক তাঁর জামিনের আবেদন নাকচ করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

জাহিদ হোসেন উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও মির্জানগর ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। এ ছাড়া জাহিদ সুবারবাজার ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অফিস সহকারী হিসেবে কর্মরত। এর আগে মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য ছিলেন।

জানা গেছে, গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর পরশুরাম উত্তর বাজারে পাওনা টাকার বিরোধকে কেন্দ্র করে দোকান কর্মচারী শাহীন চৌধুরীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে নিহত ব্যক্তির স্ত্রী ফিরোজা আক্তার বাদী হয়ে মির্জানগর ইউপির চেয়ারম্যান মো. নুরুজ্জামান ভুট্টোসহ ছয়জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। নুরুজ্জামান ভুট্টো গত ৪ জানুয়ারির পর থেকে কারাগারে রয়েছেন।

বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাইফ উদ্দিন শাহীন জানান, শাহীন চৌধুরী হত্যা মামলার অন্যতম এজাহারনামীয় আসামি জাহিদ হোসেন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে আদালতের বিচারক তাঁর জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন

শুরু হলো পাবনার ইছামতি নদী পারের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান।

মোঃ তারিক হাসান, আটঘড়িয়া পাবনা প্রতিনিধিঃ

নানা বাধা কাটিয়ে ও হাইকোর্টের নির্দেশনার পর আবারও শুরু হয়েছে পাবনার ঐতিহ্যবাহী ইছামতি নদী পারের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান।

মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) সকালে পৌর এলাকার শালগাড়িয়া মহল্লা ও গাংকুলা এলাকা থেকে উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয়।
দুপুরের দিকে সরেজমিনে দেখা যায়, পাবনা শহরের শালগাড়িয়া এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান চলছে। কয়েকটা এক্সকাভেটর (মাটি কাটার যন্ত্র) চালিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে অবৈধ স্থাপনাগুলো। এক্সকাভেটরেরর ধাক্কায় মাটিতে লুটিয়ে পড়ছে এক, দুই, তিন ও চারতলা ভবন। পাশে দাঁড়িয়ে শুধু চেয়ে দেখছেন সেখানে দীর্ঘদিন ধরে বাস করা বসতিরা। উচ্ছেদ অভিযান দেখতে উৎসুক জনতাও ভীড় করছেন।
উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্ব দেন পাবনা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রফিকুল হাসান, পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. শাহীন রেজা ও পাবনা পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী। এসময় পাবনা জেলা প্রশাসন, পাবনা পানি উন্নয়ন বোর্ড ও পৌরসভা কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে তৃতীয় দফায় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে উচ্ছেদ অভিযান শুরুর কয়েকদিন পর মামলার কারণে স্থগিত করা হয়। বসতিদের একাধিক মামলার কারণে উচ্ছেদের ওপর জারি করা স্থিতাবস্থা গত ২৪ এপ্রিল তুলে নিয়েছেন হাইকোর্ট। এর ফলে ইছামতি নদীর তীরের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে সকল ধরনের বাধা কেটে যায়। এর একদিনপরই উচ্ছেদ অভিযান শুরু করলো প্রশাসন।
পাবনাবাসীর বহুল প্রত্যাশিত নদীর উচ্ছেদ অভিযান শুরু হয় ২০১৯ সালের ২৩ ডিসেম্বর। লাইব্রেরি বাজার ব্রিজ থেকে দক্ষিণমুখি এক কিলোমিটার উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়। বর্তমানে নদীর ওই অংশে খননকাজ চলছে। পরে ওই বছরের ৩১ মার্চ লাইব্রেরি বাজার ব্রিজ থেকে উত্তরমুখে দ্বিতীয় দফায় উচ্ছেদ শুরুর কয়েকদিন পরেই থেমে যায়। হাইকোর্টে নদীর পারের বসতিদের মামলাসংক্রান্ত আইনি জটিলতা বেশ কিছুদিন উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ ছিল।
প্রায় দুই বছর বিরতির পর উচ্চ আদালতে কিছু মামলা নিষ্পত্তি হয়ে যাওয়ায় চলতি বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে আবারও শুরু হয় উচ্ছেদ অভিযান। এদিন শহরের গোবিন্দা ও কৃষ্ণপুর এলাকার বেশ কিছু স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। এর কয়েকদিনের মাথায় আবারও বন্ধ হয়ে যায় আলোচিত উচ্ছেদ অভিযান। সবশেষ হাইকোর্টের নিদেশনার পর আবারও শুরু হলো উচ্ছেদ অভিযান।

বানারীপাড়ায় আওয়ামী লীগ নেতার ধান লুট
রাহাদ সুমন,
বিশেষ প্রতিনিধি:
বরিশালের বানারীপাড়ায় পৌর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক উজ্জ্বল বড়ালের জমির ধান লুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে উজ্জ্বল বড়াল বাদী হয়ে বানারীপাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। জানা গেছে, আওয়ামী লীগ নেতা উজ্জ্বল বড়ালের
বানারীপাড়া পৌর শহরের ১ নম্বর ওয়ার্ড লাগোয়া সন্ধ্যা নদীর চরের জমিতে লাগানো ১০০
মন ধান গত ৫ দিন ধরে
কেটে তিনি পার্শ্ববর্তী মুসলিম কবরস্থান ও শ্মশানঘাট-আবাসনের রাস্তার ওপর রেখে দেন। ২৫ এপ্রিল সোমবার সন্ধ্যায়  ২৫-৩০জন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি ওই ধান লুট করে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে উজ্জ্বল বড়াল থানায় তাদের বিরুদ্ধে  লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ পেয়ে থানার উপ-পরিদর্শক শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
 এ ব্যাপরে বানারীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মোঃ হেলাল উদ্দিন বলেন তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
কলাপাড়ায় পানিতে ডুবে শিশু মুনিয়ার আকষ্মিক মৃত্যু

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি  ঃ   কলাপাড়ায় পানিতে ডুবে নামে এক শিশু
মুনিয়া (৩) বছরের আকষ্মিক মৃত্যু হয়েছে। রবিবার দুপুরের দিকে নীলগঞ্জ
ইউনিয়নের খলিলপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

২৪ এপ্রিল রবিবার দুপুরের দিকে অর্থাধ ঘটনার আধা ঘন্টা আগে  মুনিয়াকে তার
মা খুঁজে না পেয়ে পুকুর পাড়ে গেলে ভাসমান অবস্থায় তাকে দেখতে পায় ।

এসময়তাকে উদ্ধার করে কলাপাড়া স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত
চিকিৎসক শিশুটিকে মৃত ঘোষনা করেন। মুনিয়া খলিলপুর গ্রামের মনির হোসেনের
মেয়ে ।

জয়পুরহাটে গাঁজাসহ ভাবি-দেবরকে গ্রেফতার করেছে ডিবি পুলিশ
আবু রায়হান, জয়পুরহাটঃ
জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ৬ কেজি শুকনা গাঁজাসহ ভাবি-দেবরকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের সদস্যরা।
রবিবার (২৪ এপ্রিল) সকালে পাঁচবিবি উপজেলার বালিঘাটা বাজার এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন, বালিঘাটা বাজার মহাজের কলোনীর মৃত আবুল কাশেমের ছেলে আমির হোসেন ওরফে আমিনুল ইসলাম (৫৫), একই এলাকার হযরত আলী ওরফে হযো’র স্ত্রী আফিয়া আক্তার ওরফে সুমি (৩০) বলে জানা গেছে।
জয়পুরহাট জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহেদ আল মামুন জানান, গ্রেফতারকৃতরা সম্পর্কে ভাবি ও দেবর বলে স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে। তাদের বিরুদ্ধে পাঁচবিবি থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর আগেও তাদের নামে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে।
ক্ষেতলালে প্রতিবেশীর হামলায় গুরুত্বর আহত হয়ে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন এক বৃদ্ধ
আবু রায়হান, জয়পুরহাটঃ
জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধে ধরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিবেশি কর্তৃক হামলার ঘটনায় অস্ত্রের আঘাতে গুরুত্বর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন আফজাল হোসেন (৫০) নামের এক বৃদ্ধ।
আহত আফজাল হোসেন (৫০) ক্ষেতলাল উপজেলার মামুদপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ জিয়াপুর এলাকার মৃত আয়েজ উদ্দিনের ছেলে।
এ ঘটনায় আহতের কণ্যা শারমিন সুলতানা বাদি হয়ে   চিন্হিত ৪ জন ও অজ্ঞাত আরো কয়েক জনের  বিরুদ্ধে ক্ষেতলাল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২২ এপ্রিল শুক্রবার বেলা বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে আফজাল হোসেন তার বাড়ি সংলগ্ন দক্ষিণ জিয়াপুর আমিরা মাদ্রাসাগামী রাস্তার পার্শে জমিতে থাকা মেহগনি গাছের চারা উত্তোলন করার সময় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিবেশী আঃ রহমান ওরফে বগার ছেলে সুলতান হোসেন (৩৫) ও তার স্ত্রী শিউলি আক্তার (২৮), মৃত রইচ মন্ডলের ছেলে রুবেল (৪২), সুলতান হোসেনের ছেলে শাকিব (১৮) ও অজ্ঞাত আরও কয়েকজন মিলে ধারালো হাসুয়া, ফার্সা, লাঠিসোঁটা নিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে চারপাশ ঘিরে ধরে মারপিট শুরু করে। মারপিটের এক পর্যায়ে সুলতান হোসেন তার হাতে থাকা ধারালো ফার্ষা দিয়ে আফজাল হোসেনকে আঘাত করলে তাঁর কোমর কেটে রক্তাক্ত জখম হলে সে মাটিতে নুইয়ে পড়েন।
এ সময় আফজাল হোসেন জীবন বাঁচানোর তাদিগে চিৎকার করলে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ঘটনার সাথে জড়িতরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা গুরুতর আহতাবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তার অবস্থা আশংঙ্কাজন হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাৎক্ষণিক বগুড়া শ.জি.মে.ক হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।
আফজাল হোসেনের মেয়ে শারমিন সুলতানা জানান, বর্তমানে তার বাবা বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গুরুত্বর আহতাবস্থায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়ে তিনি বাদী হয়ে ক্ষেতলাল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
ক্ষেতলাল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ রওশোন ইয়াজদানী জানান, এ সংক্রান্ত বিষয়ে থানায় একটি অভিযোগ এসেছে এবং সেটি মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
কুয়াকাটায় সৈকতে একর পর এক ভেসে আসছে অর্ধগলিত মৃত কচ্ছপ ॥

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ কুয়াকাটা সৈকতে একের পর এক ভেসে আসছে
বিশাল আকৃতির অর্ধগলিত মৃতকচ্ছপ। শনিবার শেষ বিকেলের দিকে কুয়াকাটা
সৈকতের জিরো পয়েন্টের পূর্বপার্শ্বে পর্যটন পার্ক সংলগ্ন সৈকতে একটি মৃত
কচ্ছপ দেখতে পায় স্থানীয়রা। এটির ওজন প্রায় পয়ত্রিশ কেজি বলে ধারণা করা
হচ্ছে।

পরিবেশকর্মী মাসুম বিল্লাহ এ প্রতিনিধিকে জানান, তিনি শেষ বিকেলের দিকে
কুয়াকাটা সৈকতে ঘুরতে গিয়ে অর্ধগলিত কচ্ছপটি ঢেউয়ের সাথে ভেসে আসতে
দেখেন। তার মতে, এটি অন্তত এক সপ্তাহ আগে মারা গেছে। এটির ওজন ৩০ থেকে ৩৫
কেজি হতে পারে।

স্থানীয় বাসিন্দা ইয়াছিন ফরাজী এ প্রতিবেদককে বলেন, এটি জোয়ারের স্রোতে
ভেসে এসে সৈকতের বালুতে আটকে আছে। এটি এখনো অপসারণ অথবা বালু চাপা দেওয়া
হয়নি। কচ্ছপটি অর্ধগলিত হওয়ার কারণে দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ছে।

ইকোফিস-২, ওয়ার্ল্ড ফিশ বাংলাদেশ প্রকল্পের সহযোগী গবেষক সাগরিকা স্মৃতি
গনমাধ্যমকে জানায়, বর্তমানে কচ্ছপের প্রজননের সময়, তাই এরা উপকূলে চলে
আসে। উদ্ধার হওয়া মৃত কচ্ছপটির বৈজ্ঞানিক নাম লেপিডোসেলিম ওলিভাসিয়া ।
এরা সাধারণত ৫০ বছরের অধিক সময় বেঁচে থাকে।

উল্লেখ্য, গত এক মাসের মধ্যে কুয়াকাটা সৈকতে মৃত ডলফিন, রাজকাঁকড়াসহ ১২টি
মৃতকচ্ছপ উদ্ধার করা হয়েছে।

ফেনীতে ছিনতাইকালে কিশোর গ্যাংয়ের দুই সদস্য গ্রেফতার

পেয়ার আহাম্মদ চৌধুরী, ফেনী প্রতিনিধি:
ফেনীর দাউদপুল এলাকায় ছিনতাই কালে মো: ইসমাইল (২২) ও মো: রাব্বি গোলাম (১৮) নামের কিশোর গ্যাং এর ২ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব-৭, ফেনী ক্যাম্প।

শুক্রবার ২২ এপ্রিল ৯টার দিকে তাদের গ্রেফতার করেছে। এ সময় ২টি ফোল্ডিং চাকু উদ্ধার করেছে।

গ্রেফতারকৃত মো: ইসমাইল ফেনী সদর আক্তার বিবিরহাটের আব্দুল মালেকের ছেলে এবং রাব্বি গোলাম বাগেরহাট মোড়লগঞ্জ থানার খাড়ইখালী মুন্সিরহাট এলাকার মিজান শেখের ছেলে।

র‌্যাব-৭, ফেনী ক্যাম্প বলেন, গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারি যে, কতিপয় কিশোর গ্যাং এর সদস্য ফেনী পৌরসভার ১ নং ওয়ার্ডস্থ তুলাবাড়িয়া রোডের দাউদপুল সুইমিং পুলের বিপরীত পার্শ্বে সালাম হোটেল এর সামনে পাঁকা রাস্তার উপর মারাত্মক অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে দস্যুতা করার উদ্যোগ গ্রহণ করতেছে।

উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার ২২ এপ্রিল রাত ৯টার দিকে র‌্যাব-৭, ফেনী ক্যাম্পের একটি চৌকস আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান চালিয়ে ২ জন ছিনতাইকারীকে ধরতে সক্ষম হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় তারা মূলত কিশোর গ্যাং এর সক্রিয় সদস্য তারা পরস্পর যোগসাজসে ফেনী জেলার বিভিন্ন পথচারীদেরকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে মূল্যবান মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে আসছিল বলে স্বীকার করে।

গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয় এবং উদ্ধারকৃত মালামাল সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে ফেনী মডেল থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান র‍্যাব।

পাবনায় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার হিসেবে ৩৭৩ গৃহহীন পরিবার ঘর পাচ্ছে।

মোঃ তারিক হাসান, আটঘড়িয়া, পাবনা প্রতিনিধিঃ

এবারের ইদুল ফিতরে ৩২ এবারের ইদুল ফিতরে ৩২ হাজার ৯০৪টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে ঈদ উপহার হিসেবে ঘর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই পর্যায়ে সারা দেশের ন্যায় পাবনার ৯টি উপজেলার ৩৭৩টি পরিবার এসব ঘর পাচ্ছে। আগামী ২৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উপকারভোগীদের চাবি হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী।

রবিবার (২৩ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে পাবনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান জেলা প্রশাসক (ডিসি) বিশ্বাস রাসেল হোসেন।

তিনি জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে তৃতীয় পর্যায়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন অর্থাৎ ‘ক’ শ্রেণির পরিবারের জন্য নির্মিত ঘরগুলো এবারের ঈদ উপহার হিসেবে হস্তান্তর করা হবে। আগামী ২৬ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে ৩২ হাজার ৯০৪টি গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করবেন। এ পর্যায়ে পাবনার ৯টি উপজেলার ৩৭৩টি পরিবারের মাঝে ঘর প্রদান করা হবে। এর মধ্যে সাঁথিয়ায় ১৩০টি, ঈশ্বরদীতে ৬০টি, বেড়াতে ৫০টি, পাবনা সদরে ৪৭টি, আটঘরিয়াতে ২৮টি, চাটমোরে ২২টি, সুজানগরে ১৮টি, ভাঙ্গুড়ায় ১০ এবং ফরিদপুর উপজেলায় ৮টি গৃহহীনদের ঘর বুঝিয়ে দেয়া হবে।

তিনি আরও জানান, এই পর্যায়ে পাবনার ৬৫৪টি পরিবারের মাঝে ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। বাকী গৃহগুলো নির্মাণ কাজ অব্যাহত রয়েছে। সেগুলোর কাজও শেষ পর্যায়ে। কাজ শেষে বরাদ্দকৃতদের মাঝে বুঝিয়ে দেয়া হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন, পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি আব্দুল মতিন খান, প্রবীণ সাংবাদিক ইয়াছিন আলী মৃধা রতন, রাজিউর রহমান রুমি, জহুরুল ইসলাম, কাজী মাহবুব মোর্শেদ বাবলা প্রমুখ।হাজার ৯০৪টি গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে ঈদ উপহার হিসেবে ঘর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই পর্যায়ে সারা দেশের ন্যায় পাবনার ৯টি উপজেলার ৩৭৩টি পরিবার এসব ঘর পাচ্ছে। আগামী ২৬ এপ্রিল (মঙ্গলবার) গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে উপকারভোগীদের চাবি হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী।

রবিবার (২৩ এপ্রিল) বিকেল ৩টার দিকে পাবনা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান জেলা প্রশাসক (ডিসি) বিশ্বাস রাসেল হোসেন।

তিনি জানান, মুজিববর্ষ উপলক্ষে তৃতীয় পর্যায়ে ভূমিহীন ও গৃহহীন অর্থাৎ ‘ক’ শ্রেণির পরিবারের জন্য নির্মিত ঘরগুলো এবারের ঈদ উপহার হিসেবে হস্তান্তর করা হবে। আগামী ২৬ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারা দেশে ৩২ হাজার ৯০৪টি গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করবেন। এ পর্যায়ে পাবনার ৯টি উপজেলার ৩৭৩টি পরিবারের মাঝে ঘর প্রদান করা হবে। এর মধ্যে সাঁথিয়ায় ১৩০টি, ঈশ্বরদীতে ৬০টি, বেড়াতে ৫০টি, পাবনা সদরে ৪৭টি, আটঘরিয়াতে ২৮টি, চাটমোরে ২২টি, সুজানগরে ১৮টি, ভাঙ্গুড়ায় ১০ এবং ফরিদপুর উপজেলায় ৮টি গৃহহীনদের ঘর বুঝিয়ে দেয়া হবে।

তিনি আরও জানান, এই পর্যায়ে পাবনার ৬৫৪টি পরিবারের মাঝে ঘর বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। বাকী গৃহগুলো নির্মাণ কাজ অব্যাহত রয়েছে। সেগুলোর কাজও শেষ পর্যায়ে। কাজ শেষে বরাদ্দকৃতদের মাঝে বুঝিয়ে দেয়া হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন, পাবনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান, সম্পাদক সৈকত আফরোজ আসাদ, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি আব্দুল মতিন খান, প্রবীণ সাংবাদিক ইয়াছিন আলী মৃধা রতন, রাজিউর রহমান রুমি, জহুরুল ইসলাম, কাজী মাহবুব মোর্শেদ বাবলা প্রমুখ।

1 2 3 853

Contact Us